ঘুম থেকে তুলে মোশাররফ করিমের জন্মদিন পালন

নাটকের শুটিং শেষে ভীষণ ক্লান্ত হয়ে পড়েন মোশাররফ করিম। আর তাই তো হোটেলে ফিরে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। কিন্তু জন্মদিনের প্রথম প্রহর ঘুমিয়ে কাটিয়ে দেবেন, তা কি আর হয়! তাই তো জীবনসঙ্গী জুঁই স্বামীকে ঘুম থেকে তুলে কেক কাটলেন। শুটিং ইউনিটের সবাই মিলে মজা করলেন। এভাবেই এবারের জন্মদিনের প্রথম প্রহরটা কেটেছে মোশাররফ করিমের।

মোশাররফ করিমকে কেক খাইয়ে দিচ্ছেন স্ত্রী জুঁইআজ টেলিভিশন নাটকের জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী মোশাররফ করিমের জন্মদিন। ঈদের জন্য নির্মিতব্য ‘অ্যাভারেজ আসলাম’ নামের একটি নাটকের শুটিংয়ের জন্য রোববার তাঁকে কক্সবাজার থাকতে হয়েছে। তাই জন্মদিনটা সেখানে পালন করা হয়। আজ সোমবার যখন মোশাররফ করিমের সঙ্গে কথা হচ্ছিল, তখন তিনি ঢাকার পথে। বললেন, ‘সময় যেন কীভাবে চলে যাচ্ছে। উদ্‌যাপনের মধ্য দিয়ে সময়কে ধরে রাখার একটা চেষ্টা আর কি। আমার এমনিতে ঘটা করে জন্মদিন পালন করা হয় না। তবে ছোটখাটো আয়োজন ভালো লাগে কিন্তু।’
২২ আগস্ট ঢাকায় জন্ম নেওয়া টেলিভিশন নাটকের জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী মোশাররফ করিমের গ্রামের বাড়ি বরিশাল।
জন্মদিনের কেক হাতে নির্মাতা সাগর জাহানের সঙ্গে মোশাররফ করিমের সেলফি

ব্লাউজের স্টাইল

শাড়ি বাঙালি নারীর প্রথম পছন্দ। তাই তো শাড়ির সঙ্গে ব্লাউজ হওয়া চাই স্টাইলিশ। যাতে কেউ চোখ ফেরাতে না পারে। ভিড়ের মাঝেও সবার নজর কাড়তে এইসব স্টাইলিশ ব্লাউজের ডিজাইন বেছে নিতে পারেন আপনিও…

টাই-আপ ব্লাউজ ব্যাক নেক ডিজাইন : অন্যতম আকর্ষণীয় ব্লাউজের ডিজাইন। ফ্যান্সি শাড়ির সঙ্গে এই ধরনের ব্লাউজ ভালো মানায়। পিঠের দিকটা বেশ অনেকখানি কাটা হয় এবং রিবন দিয়ে ক্রস আকারে করা থাকে বাঁধার জন্য।

বোট নেক : স্ট্রেট বোট নেক এখন ফ্যাশনে খুব চলতি। এই ডিজাইনার ব্লাউজের সঙ্গে সিম্পল শাড়ি পরলেও খুব ভালো মানাবে।

V-শেপ ব্লাউজ ব্যাক নেক ডিজাইন : এই ধরনের নকশা কাটা ব্লাউজ়ের ডিজাইন খুব ইউনিক এবং ততটাই সুন্দর। ট্র্যাডিশনাল অথচ সাজে আধুনিক টাচ রাখতে এই ধরনের ব্লাউজ বাজিমাত করবে।

এমবেলিশড্ ব্যাক ব্লাউজ সঙ্গে টাসেল : ক্রেপ সিল্কের শাড়ির সঙ্গে এই ধরনের ব্লাউজ সবচেয়ে ভালো মানায়। শরীরের গড়ন খুব ভালো ফুটে ওঠে।

দড়ি স্টাইল ব্লাউজ : পিঠে দড়ি বাঁধা ব্লাউজের স্টাইল নতুন নয়। ফ্যাশনে বহুদিন ধরে রয়েছে। সেই ফ্যাশনে নয়া বিষয়টি হল, ব্লাউজের পিঠে উপর-নীচে দড়ি দেওয়া, সেই সঙ্গে বড় বড় স্টোন বা পুঁথি দড়ির সঙ্গে বাঁধা।

হাই নেক ব্লাউজ : নেট, জার্দৌসি এবং রেশমের কারুকার্য করা এই ব্লাউজ এখন খুব ফ্যাশনেবল। সোনালি বা লাল রঙের এই স্টাইলের একটি ব্লাউজ থাকলে, যে কোনও শাড়ির সঙ্গে পরতে পারবেন।

কাট-ওয়ার্ক ব্লাউজ ডিজাইন: সাজকে স্পেশাল করে তুলতে শিফন বা সিল্কের শাড়ির সঙ্গে পরতে পারেন কাট-ওয়ার্ক ব্লাউজ। জরি ও স্টোনের কারুকার্য করা এই ব্লাউজের ডিজাইন সকলের নজর কাড়বে।

সর্বোচ্চ করদাতা মাহফুজ আহমেদ

চলচ্চিত্র, নাটক ও সঙ্গীতের তারকারা কে কত টাকার মালিক, তা অনেকটা ধোঁয়াশার মধ্যেই থেকে যায়। তবে অনেকে নিয়মিত আয়কর দিয়ে থাকেন। সম্প্রতি তারকাদের দাখিল করা ২০১৩-১৪ করবর্ষের আয়কর নথি পর্যালোচনা করে তাদের আয় সর্বোচ্চ করদাতাদের তালিকা প্রকাশিত হয়েছে।

তালিকায় শোবিজ অঙ্গনের সর্বোচ্চ করদাতাদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছেন মাহফুজ আহমেদ। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন অভিনেতা জাহিদ হাসান। তৃতীয় অবস্থানে শাকিব খান।

এ প্রসঙ্গে মাহফুজ আহমেদ বলেন, ‘আয়ের উপর সরকারের ধার্যকৃত কর নিয়মিত পরিশোধ করে থাকি। এ ক্ষেত্রে কখনই খেলাপ করিনি। আশা করি আগামীতেও এর ধারাবাহিকতা চালিয়ে যেতে পারব।’

অপরদিকে তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা জাহিদ হাসান বলেন, ‘প্রত্যেক নাগরিকের উচিত নিয়মিত আয়কর প্রদান করা। দেশের প্রতি ভালোবাসা থেকেই এটি দায়িত্বসহকারে আদায় করা উচিত। সবাই নিয়মিত কর প্রদান করলে দেশ আরও সামনের দিকে এগিয়ে যাবে বলে আমার বিশ্বাস।’

প্রসঙ্গত, শুধু অভিনয়ই নয়, এর বাইরেও একাধিক ব্যবসা রয়েছে এ দুই অভিনেতার। পাশাপাশি বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডের দায়িত্বও পালন করে আসছেন তারা।

প্রসঙ্গত, এ মুহূর্তে ঈদের নাটকে অভিনয় ও নির্মাণ নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন মাহফুজ আহমেদ। তবে অভিনয়ের চেয়ে নির্মাণের দিকেই তার নজর বেশি।

বাবা-ছেলের উপস্থাপনা

মজার ও প্রাণবন্ত উপস্থাপনা দিয়ে সাজু খাদেম বরাবরই মাতিয়ে রাখেন মঞ্চ। তাঁর হাস্যরস সহজেই দর্শকের মুখে হাসি ফোটাতে পারে। তাঁর ছেলে সার্ধশ প্রজ্ঞান সম্ভবত বাবার মেধাটাই পেয়েছে। তাই তো মাত্র পাঁচ বছর বয়সেই বাবার সঙ্গে পাল্লা দিতে মঞ্চ উঠে এসেছে সে। বাবা-ছেলের সেই মঞ্চ পরিবেশনা দেখা যাবে কৌতুকবিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘হা-শো’তে।দৃশ্য ধারণের আগে মঞ্চে বাবা–ছেলের প্রস্তুতি
কয়েক দিন আগে রাজধানীর এফডিসির একটি শুটিং ফ্লোরে হয় হা-শোর ওই পর্বটির শুটিং। ওই পর্বটিতেই বাবার সঙ্গে মঞ্চে ওঠে সার্ধশ। শুরুতেই বাবার ঢঙে শুরু করে উপস্থাপনা। ছেলের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানটি শুরুর পর এর বাকি অংশের হাল ধরেন সাজু খাদেম।
ওই পর্বের শেষে একটি কৌতুকও পরিবেশন করে সার্ধশ। ছেলের উপস্থাপনা নিয়ে সাজু বলেন, ‘আমি বাসায় দেখতাম ও এই অনুষ্ঠানটা দেখে এবং আমার মতো করে উপস্থাপনা করার চেষ্টা করে। তাই ওকে নিয়ে এসেছিলাম সত্যি সত্যি অনুষ্ঠানটা উপস্থাপনা করার জন্য। দেখলাম, ক্যামেরার সামনে ও বেশ সাবলীল।’
হা-শোর প্রযোজক হাসান ইউসুফ খান বলেন, ১৮তম পর্বে দেখা যাবে বাবা-ছেলের উপস্থাপনা। সপ্তাহের প্রতি শনি ও রোববার রাত ৯টা ৫ মিনিটে প্রচারিত হয় হা-শো।

সর্বাধিক বেতন পাওয়া যায় যেসব পেশায়

কোনো কোনো পেশায় নিয়োজিত হওয়া যেমন সহজ তেমন বেতনও কম। আবার কোনো পেশা রয়েছে যেখানে কাজ শুরু করার জন্য বহু বছর ধরে পড়াশোনা ও প্রশিক্ষণের প্রয়োজন হয়। সেসব পেশায় স্বভাবতই বেতন ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বেশি থাকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি বেতন পাওয়া যায় যেসব পেশায়, তা তুলে ধরা হলো এ লেখায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
৩৭. কম্পিউটার অ্যান্ড ইনফরমেশন রিসার্চ গবেষক (গড় বার্ষিক বেতন ১,১৫,৫৮০ ডলার)
৩৬. অপটোমেট্রিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ১,১৫,৭৫০ ডলার)
৩৫. জাজ, ম্যাজিস্ট্রেট জাজ বা ম্যাজিস্ট্রেট (গড় বার্ষিক বেতন ১,১৬,১০০ ডলার)
৩৪. হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১১৭,০৮০ ডলার)
৩৩. পার্সোনাল ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাডভাইজার (গড় বার্ষিক বেতন ১১৮,০৫০ ডলার)
৩২. পদার্থবিদ (গড় বার্ষিক বেতন ১১৮,৫০০ ডলার)
৩১. এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার (গড় বার্ষিক বেতন ১১৮,৭৪০ ডলার)
৩০. ফার্মাসিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ১১৯,২৭০ ডলার)
২৯. পাবলিক রিলেশন্স বা ফান্ডরাইজিং ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১১৯,৩৯০ ডলার)
২৮. জেনারেল বা অপারেশন্স ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১১৯,৪৬০ ডলার)
২৭. কমপেনসেশন অ্যান্ড বেনিফিট ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১২১,৬৩০ ডলার)
২৬. আইন প্রফেসর (গড় বার্ষিক বেতন ১২৬,২৩০ ডলার)
২৫. সেলস ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১৩০,৪০০ ডলার)
২৪. ফাইন্যান্সিয়াল ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১৩৪,৩০০ ডলার)
২৩. পডিয়াট্রিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ১৩৬,১৮০ ডলার)
২২. আইনজীবী (গড় বার্ষিক বেতন ১৩৬,২৬০ ডলার)
২১. এয়ারলাইন পাইলট, সহ-পাইলট ও ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার (গড় বার্ষিক বেতন ১৩৬,৪০০ ডলার)
২০. ন্যাচারাল সায়েন্সেস ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১৩৬,৫৭০ ডলার)
১৯. মার্কেটিং ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১৪০,৬৬০ ডলার)
১৮. কম্পিউটার অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১৪১,০০০ ডলার)
১৭. আর্কিটেকচার বা ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজার (গড় বার্ষিক বেতন ১৪১,৬৫০ ডলার)
১৬. পেট্রলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার (গড় বার্ষিক বেতন ১৪৯,৫৯০ ডলার)
১৫. নার্স অ্যানেসথেটিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ১৬০,২৫০ ডলার)
১৪. প্রসথোডোনটিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ১৬১,০২০ ডলার)
১৩. ডেনটিস্ট (বিশেষজ্ঞ) (গড় বার্ষিক বেতন ১৭১,০৪০ ডলার)
১২. ডেনটিস্ট (সাধারণ) (গড় বার্ষিক বেতন ১৭২,৩৫০ ডলার)
১১. শিশু চিকিৎসক (সাধারণ) (গড় বার্ষিক বেতন ১৮৩,১৮০ ডলার)
১০. প্রধান নির্বাহী (গড় বার্ষিক বেতন ১৮৫,৮৫০ ডলার)
৯. ফ্যামিলি অ্যান্ড জেনারেল প্র্যাকটিশনার ডাক্তার (গড় বার্ষিক বেতন ১৯২,১২০ ডলার)
৮. মনোবিদ (গড় বার্ষিক বেতন ১৯৩,৬৮০ ডলার)
৭. জেনারেল ইন্টার্নিস্ট ডাক্তার (গড় বার্ষিক বেতন ১৯৬,৫২০ ডলার)
৬. ফিজিশিয়ান ও সার্জন (গড় বার্ষিক বেতন ১৯৭,৭০০ ডলার)
৫. অর্থডেনটিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ২২১,৩৯০ ডলার)
৪. প্রসূতি এবং স্ত্রীরোগ বিশারদ (গড় বার্ষিক বেতন ২২২,৪০০ ডলার)
৩. ওরাল ও ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জন (গড় বার্ষিক বেতন ২৩৩,৯০০ ডলার)
২. সার্জন (গড় বার্ষিক বেতন ২৪৭,৫২০ ডলার)
১. অ্যানেসথেসিওলজিস্ট (গড় বার্ষিক বেতন ২৫৮,১০০ ডলার)

একের পর এক ছবি থেকে বাদ পড়ছেন মাহিয়া মাহি

দ্বিতীয় বিয়ের পর মাহির ভাগ্য যেন তার সঙ্গে বেঈমানি করছে। বিয়ের আগে চুক্তিবদ্ধ ছবিগুলোর শুটিং তো শুরু হচ্ছেই না, বরং সেগুলো থেকে বাদ পড়ার সম্ভাবনাও তৈরি হয়েছে।

গত সপ্তাহে গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার হয় বদিউল আলম খোকনের নতুন ছবি ‘আমার প্রতিজ্ঞা’তে অভিনয় করছেন মাহিয়া মাহি। এতে তার নায়ক হিসেবে থাকছেন ঢাকাই ছবির শীর্ষ নায়ক শাকিব খান। কিন্তু সপ্তাহের শুরুতেই জানা গেল নতুন খবর। এ ছবিটি থেকে বাদ পড়ছেন মাহি।

বিশেষ সূত্রের বরাতে জানা গেছে, ছবিটির নায়ক স্বয়ং শাকিব খানই চাচ্ছেন না এতে তার নায়িকা হিসেবে মাহি থাকুক। মাহি থাকলে তিনি এ ছবিতে অভিনয় করবেন না বলেও সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। শাকিব খানের এই অনিচ্ছার কারণেই মাহিকে বাদ দেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে শাকিব খানের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তিনি কিছুই বলতে রাজি হননি। পরিচালকও এ ব্যাপারে আপাতত কিছু বলা থেকে বিরত রয়েছেন। তবে তাদের মৌনতাই বলে দেয় মাহিকে নিয়ে ছবিটি আর করছেন না। মাহির বদলে অন্য কোনো নতুন নায়িকা নিয়ে ছবির শুটিং শুরু করা হবে। শাকিব খানেরও ইচ্ছে সে রকম বলেই জানা গেছে।

সূত্র বলছে, মাহিকে বাদ দেয়ার পেছনে বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। একে তো বিতর্কিত বিয়ে। তার ওপর প্রশাসনিক উচ্চ পর্যায়ের কিছু লোকের সঙ্গে সম্পর্কের সুবাদে যে কোনো প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করেন তিনি। যেটা সিনেমার লোকেরা স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেননি। নিজের গাঁটের পয়সা খরচ করে কেউ ইউনিটে অশান্তি সৃষ্টি করতে চান না।

তাছাড়া আগের মতো তার ইমেজও নেই। ব্যক্তিগত অনেক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য দর্শক চাহিদাও অনেক কমে গেছে। সবকিছু মিলিয়েই মাহির সঙ্গে ছবিতে অভিনয় করতে নারাজ ঢাকাই শাকিব খান।

এদিকে টিভি পর্দার জনপ্রিয় মুখ সজলের সঙ্গে জুটি বেঁধে ‘হারজিৎ’ নামে একটি ছবির শুটিং শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এ ছবিটির শুটিং একমাস পিছিয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্র বলছে, মুলত ছবিটির শুটিং করার পূর্ণ প্রস্তুতি নেই প্রযোজক ও পরিচালকের। তাছাড়া মাহিকে নিয়েও নাকি ঝামেলা আছে বলে গুঞ্জন রয়েছে। অন্যদিকে মাহিকে নেয়ার কারণে প্রযোজকের অভাবে আরও একটি ছবির শুটিং বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছেন এক পরিচালক।

ফ্যাশনে আবার মিডি স্কার্ট

নারীর ফ্যাশনে নতুনত্ব ফুটিয়ে তোলার জন্য বিশেষ কিছু খুঁজছেন? তাহলে বেছে নিতে পারেন আয়তন স্ফীতকারী মিডি স্কার্ট। ৭০ এবং ৮০ এর দশকের জনপ্রিয় এই স্টাইলটি আবারও জায়গা করে নিচ্ছে ফ্যাশন বিশ্বে। এছাড়া আপনি যখনই ৮০ এর দশকের কোন চলচ্চিত্র দেখবেন তখনই চোখে পড়বে আকর্ষণীয় এই পোশাকটি। এই পোশাকটি যারা পছন্দ করেন তাদের জন্য সুসংবাদ হচ্ছে এটি এখন আবার ফ্যাশনে চলে আসছে এবং অনেক ডিজাইনাররাও বর্তমানে বিভিন্ন স্টাইল ও কাপড়ে এটি তৈরি করছেন।

বর্তমানে ফ্যাশনে ভালভাবে জায়গা করে নিয়েছে মিডি স্কার্ট। প্রায় সব জায়গায় মার্কেটে কম বেশি পাওয়া যাচ্ছে এই আইটেমটি। নতুন কালেকশনটি দেখে নিন এবং তৈরি করুন আপনার নিজের ফ্যাশন আইডিয়া। মিডি স্কার্ট পরা তেমন কঠিন কিছু নয়। বিভিন্ন স্টাইল আইডিয়া তৈরি করে আপনি নিজেও এটি পরতে পারেন। তবে এটা মাঝে মাঝে কাপড়ের ওপরও নির্ভর করে এর ফ্যাশন।

আপনি যদি সুন্দর এবং ক্লাসিক একটি স্কার্ট পরতে চান তাহলে এর সাথে বেছে নিতে পারেন স্ট্রাইপ করা অথবা সাধারণ ব্লাউজ কিংবা সাধারণ সাদা কামিজ। ক্যাজুয়াল লুকের জন্য এর সাথে পরতে পারেন সাধারণ টপস এবং চাইলে এর ওপর চাপিয়ে নিতে পারেন ডেনিম ভেস্ট অথবা ডেনিম জ্যাকেট। প্লেফুল লুজ নিয়ে আসতে চাইলে এর সাথে পরতে পারেন ডেনিম শার্ট।

‘গোলমাল ৪’ থেকে কারিনাকে বাদই দিলেন পরিচালক রোহিত শেট্টি

বরাবরই নিজের পেশা নিয়ে বেশ সচেতন ছিলেন বেবো৷ সাইফের সঙ্গে বিয়ে নিয়ে বেশি মাতামাতি পর্যন্ত করেননি তিনি৷ সম্পর্ক নিয়েও বরাবরই তাঁর মুখে কুলুপ৷ এতেই শেষ নয়, নিজের সন্তান সম্ভাবনার কথাও প্রথম এড়িয়ে গিয়েছিলেন মিডিয়ার সামনে৷ কিন্তু তাঁর স্বামী প্রকাশ্যে কারিনার সন্তান সম্ভাবনার কথাটি জানিয়ে দেন৷

কিন্তু কারিনার নিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে এত চুপ থাকার কারণ কী?

বেবো কি কোনোভাবে বুঝেছিলেন তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের গল্পগুলি তাঁর কেরিয়ারের ক্ষতি করতে পারে?

এই যেমন সন্তান সম্ভাবনার জন্য কাজ হাতছাড়া হল অভিনেত্রীর৷ রোহিত শেট্টির আগামী ছবি ‘গোলমাল ৪’-এ কারিনাকে বাদ দিলেন পরিচালক৷ কারিনার সন্তান সম্ভাবনার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রোহিত৷ এমনটাই তিনি জানিয়েছেন সংবাদমাধ্যমকে৷

পরিচালক জানান, ‘গোলমাল ২ এবং গোলমাল ৩-এ কারিনা অভিনয় করেছিলেন৷ তাঁকে ছবির প্রস্তাব দিতে পারলে ভালই হত৷ কিন্তু তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে এখন যেমন অবস্থা রয়েছে, তাতে তাঁকে ছবির জন্য প্রস্তাব দেয়া উচিত হবে না৷’

শোনা যাচ্ছে, কারিনার পরিবর্তে দীপিকাকে ‘গোলমাল ৪’-এর জন্য প্রস্তাব দেয়া হতে পারে৷

তবে কি এবার নিজের ব্যক্তিগত জীবনের জন্য কারিনাকে টেক্কা দিলেন দীপিকা?

মুক্তি পেল ‘বসগিরি’র টাইটেল গান

5cde2e9371ea40297f689fc22044c852-Untitled-8ঈদের সম্ভাব্য ছবি মুক্তির তালিকায় আছে শাকিব-বুবলি জুটির ‘বসগিরি’। তার আগেই মুক্তি পেল এই ছবির টাইটেল গান। গতকাল রোববার রাতে ‘যেখানে বস, করবি না ক্রস’ শিরোনামের এই গানটি ইউটিউব চ্যানেল ললিপপ-এ মুক্তি পেয়েছে।
ছবির পরিচালক শামীম আহমেদ জানান, টাইটেল গানের কথা ও সুরের মাধ্যমে পুরো ছবির আবহকে তুলে ধরা হয়েছে। ছবি মুক্তির আগে গানটির মধ্য দিয়ে দর্শক-শ্রোতারা ছবিটি সম্পর্কে একটা ধারণা পাবেন। তিনি বলেন, ‘ঈদে ছবিটি মুক্তি দেওয়ার জন্য আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি প্রায় শেষ। কলকাতা থেকে ছবির সবগুলো গানের কালার কারেকশন করে গতকাল ফিরেছি। শিগগিরই ছবিটি ছাড়পত্রের জন্য সেন্সরে জমা দেওয়া হবে।’
ছবির নায়ক শাকিব খান বলেন, ‘এই ছবির গান, গল্প এবং বাজেট কোনোটার ব্যাপারে কোনো আপস করা হয়নি। সবগুলো গানের দৃশ্যধারণ থাইল্যান্ডের একাধিক মনোরম লোকেশনে করা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে গানগুলোর চিত্রায়ণে থাকছে অনেক বেশি নতুনত্ব।’
পরিচালক জানান, টাইটেল গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন শত্রুজিৎ। লেখাও তাঁর। সংগীত পরিচালনা করেছেন ডাব্বু ঘোষাল।

অফিস থেকে তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরলে কর্মীদের উৎপাদনশীলতা বাড়ে

৩.৮ বিলিওনের টেক স্টার্টআপ স্ল্যাক সিইও স্টুয়ার্ট বাটারফিল্ড অফিসে দীর্ঘ সময় ধরে কাজে বিশ্বাসী নন। এ কারণেই স্ল্যাকের একটি আভ্যন্তরীণ মন্ত্র হলো, “কঠোর পরিশ্রম করুন, দ্রুত ঘরে ফিরে যান”।
বাটারফিল্ড বলেন, “আমার অভিজ্ঞতায় দেখা সবচেয়ে উৎপাদনশীল কর্মী তারা যারা বিকেল ৫ টা ৩০ মিনিটের মধ্যে বাড়ি ফিরে যান। এরা কাজের ব্যাপারে উচ্চমাত্রায় মনোযোগী হন। আর লোকে দিনে মাত্র ৬ থেকে ৮ ঘন্টার বেশি কঠোর মানসিক পরিশ্রম বা চিন্তা-ভাবনা করতে পারেন না।”
তবে এখনকার কর্মপরিবেশে সারাদিনই উৎপাদনশীল থাকা অতটা সহজ নয়। যেখানে সারাক্ষণই বিভিন্ন সফটওয়্যারে অসংখ্য ফাইল চালাচালি হয় সেখানে নির্দিষ্ট কোনো ফাইলের সর্বশেষ সংস্করণটি কোথায় এ ধরনের প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাওয়াটা খুব সহজ নয়। স্ল্যাক এর কর্মী সংখ্যা মাত্র ৩৫০ জন। তা সত্ত্বেও কম্পানিটি ৮০টি ভিন্ন ভিন্ন সফটওয়্যার ব্যবহার করে।
বাটার ফিল্ড এই সমস্যার সমাধান করতে চান। তার বিশ্বাস স্ল্যাক থেকেই তিনি এ সমস্যার সমাধানে একটি উত্তর পেয়ে যাবেন। স্ল্যাক নামের কমিউনিকেশন অ্যাপটি মাত্র দু্ই বছরের চেয়ে সামান্য বেশি সময়ের মধ্যে তার টেক স্টার্টআপকে ৩.৮ বিলিয়ন ডলারের বেশি আয়ের সুযোগ করে দিয়েছে।
তার ধারণার কেন্দ্রে রয়েছে একটি চ্যাট বট। এই প্রযুক্তি ইউজারদেরকে থার্ডপার্টি অ্যাপ কন্টেন্টে প্রবেশের সুযোগ করে দেয়। স্ল্যাকের মতো চ্যাট প্রোগ্রামের মধ্যেই এই সুযোগ করে দেওয়া হয়। এবং অন্য কোনো অ্যাপ খুলে এটি দেখার প্রয়োজনও পড়ে না।
উদাহরণত, ইউজাররা স্ল্যাক ব্যবহার করেই সেলসফোর্স থেকে তথ্য খুঁজে পেতে পারেন। অথবা ব্যয় প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেন।
বাটারফিল্ড দেখতে পাচ্ছেন, ভবিষ্যতে স্ল্যাক আরো স্মার্ট এবং আরো বুদ্ধিমান হবে। কারণ এটি অারো বেশি তথ্য জড়ো করছে এবং সবচেয়ে পুনরাবৃত্তিমূলক কাজগুলো স্বয়ংক্রিয় করছে। যেমন, কে কোন প্রকল্প পরিচালনা করছে তা খুঁজে বের করা।
তবে রাতারাতিই এমনটি ঘটেছে বলে মনে করছেন না বাটারফিল্ড। স্ল্যাক এই সম্প্রতি মাত্র দৈনিক ৩০ লাখ সক্রিয় ব্যবহারকারীর মাইলফলক ছুঁয়েছে। আর এর বেশিরভাগ কাস্টমারই ক্ষুদ্র দল বা ব্যবসা। আর এ কারণেই গুগলের মতো একটি স্বয়ংক্রিয় সিস্টেম গড়ে তুলতে পারেনি স্ল্যাক। কারণ এর কাছে যথেষ্ট তথ্য নেই।
কিন্তু অসংখ্য লোক বাটারফিল্ডের দূরদর্শিতায় বিশ্বাস করেন। কারণ মাত্র গত দুই বছরের মধ্যেই তিনি ভিসি অর্থায়নের ৫৪০ মিলিয়ন ডলার তুলে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন। আর তার বিশ্বাস সময়ের সঙ্গে সঙ্গে স্ল্যাক সকলকে আরো স্মার্ট এবং দক্ষ করে তুলবে।

কিক করার আগে কনফিডেন্স ছিল না জ্যাকলিনের

কিক ছবিতে অভিনয়ের আগে অনেক ছবিই করে ফেলেছিলেন তিনি। কিন্তু কনফিডেন্স আসে কিক ছবি থেকেই। জানিয়েছেন জ্যাকলিন ফার্নান্দেজ।

তিনি বলেছেন, কিকের অফার পেয়ে তিনি উচ্ছ্বসিত ছিলেন। ছবি রিলিজের পর পর অনেক কিছুই পালটে গেছে। তাঁর মধ্যে কনফিডেন্স বেড়েছে।  আমি বুঝতে পারি, কিকের আগে আমি কোথায় ভুল ছিলাম। তখন আমার মধ্যে কোনও কনফিডেন্স ছিল না। একমাত্র সেটাই আমার সমস্যা ছিল। বলেছেন জ্যাকলিন।

২০১৪ সালে রিলিজ করে কিক। বক্স অফিসে ছবিটি ভালোই সাড়া ফেলেছিল। জ্যাকলিনের অভিনয়ও প্রশংসিত হয়েছিল। কিকের আগে তিনি রেস ২, হাউজ়ফুল ২-এর মতো ছবি করেছিলেন। কিন্তু জ্যাকলিনের মতে কিকের পরে তিনি যে সব ছবিতে সই করেছেন, সেখানে তাঁর কনফিডেন্স লেভেল ছিল অনেক বেশি। তিনি নিজে সেটা উপলব্ধি করতে পেরেছেন।

জ্যাকলিন এর পর দেখা দেবেন ফ্লাইং জাটে। সেখানে টাইগার শ্রফের সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করতে দেখা যাবে তাঁকে।

ঝিমিয়ে পড়া সম্পর্ককে নতুন মাত্রা দিতে

নানা কারণে আমাদের দীর্ঘদিন গড়ে ওঠা সম্পর্ক ঝিমিয়ে পড়তে পারে। আর সম্পর্ক যখন ঝিমিয়ে পড়ে তখন তা একঘেয়ে হয়ে যায়। আর এ অবস্থা থেকে মুক্তি দিতে পারে একটি বিষয়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।

হানিমুন মানুষের জীবনে সম্পর্ক গড়তে ও তা টিকিয়ে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। বিয়ের পর প্রথম এক বছরকে হানিমুন পিরিয়ড বলা হয়। এ সময় সাধারণত কোনো সমস্যা না হলে সম্পর্ক ভালোভাবেই চলে যায়। তবে এরপর তা ঝিমিয়ে পড়তে পারে। তবে আপনি যদি সম্পর্ককে আরও বহুদিন প্রাণবন্ত রাখতে চান তাহলে বাড়ি থেকে বের হতে হবে। আর এ জন্য গবেষকদের পরামর্শ হলো- বাড়ি থেকে বের হয়ে একত্রে নতুন বিষয়ে মনোযোগী হওয়া।

সম্প্রতি এক গবেষণাতেও বাড়ি থেকে বের হয়ে নতুন নতুন বিষয়ে উৎসাহ নিয়ে কাজ করার উপকারিতা জানা গেছে। গবেষকরা জানান, একত্রে বাড়ি থেকে বের হয়ে কিছুটা সময় কাটানো কিংবা পাহাড়ে চড়া, পিকনিক করা ইত্যাদি সম্পর্ককে নতুন মাত্রা দেয়। আর এ বিষয়টি মোটেও কঠিন কোনো কাজ নয়।

সম্পর্ককে নতুন মাত্রা দেওয়ার এ বিষয়টি জানা গেছে যুক্তরাষ্ট্রের স্টোনি ব্রুক ইউনিভার্সিটির সাইকোলজির প্রফেসর আর্থার অ্যারনের গবেষণার ফলে। তিনি প্রথম ৫৩ জোড়া বিবাহিত দম্পতির ওপর বিষয়টি অনুসন্ধান করেন। এরপর তিনি ও তার সহকর্মীরা প্রায় দুই হাজার গবেষণা প্রতিবেদন থেকে বিষয়টির সমর্থনে তথ্য সংগ্রহ করেন।

এতে দেখা যায়, দম্পতিরা যদি কিছু সময় বাড়ির বাইরে বের হন এবং একত্রে হাঁটাহাটি কিংবা পাহাড়ে চড়া, পিকনিক, ঘোরাঘুরি ইত্যাদি করেন তাহলে সম্পর্ক নতুন মাত্রা পায়। এটি উভয়ের মাঝে সম্পর্ক যেমন জোরালো করে তেমন তা একে অন্যের মাঝে সম্পর্ক বিষয়ে সন্তুষ্টিও তৈরি করে।