এ বছরের আলোচিত বিয়ে বিচ্ছেদ

শোবিজে যেন প্রেম-বিয়ে ডিভোর্স খুবই ঠুনকো ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ বছর বলিউডে প্রচুর বিয়ে বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটেছে।

ঘটেছে আমাদের দেশের শোবিজ অঙ্গনেও। এ বছর আমাদের দেশের শোবিজের কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বিয়ে বিচ্ছেদের ঘটনা তুলে ধরা হলো-সানবীম

সংগীতশিল্পী সানবীম শূন্য দশকের শুরুর দিকে বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। তার আগে জাফর ইকবালের কণ্ঠে গাওয়া সুখে থাকো ও আমার নন্দিনী/হয়ে কারো ঘরনী/জেনে রাখো প্রাসাদেরও বন্দিনী/প্রেম কভূ মরেনি তিনি নতুন করে গেয়ে আলোচনায় আসেন। তবে তারচেয়েও বড় কথা তিনি আলোচনায় এলেন দীর্ঘদিনের দাম্পত্য সম্পর্কের ইতি টেনে।   সানবীমের দাম্পত্য জীবনের বিষয়ে তেমন কিছু জানা না গেলেও তার দুই সন্তান রয়েছে। বিচ্ছেদের পর এখন সন্তানরা ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত মায়ের কাছেই থাকবে। এমনটাই ফেসবুক বন্ধুর এক প্রশ্নের জবাবে জানিয়েছেন।

তিন্নি-সাদ

মডেল অভিনেত্রী তিন্নি। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে দ্বিতীয় স্বামীর সংসার ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন তিনি। ২০১৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি আদনান হুদা সাদের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন এই তারকা। এ বছরের ১৩ আগস্ট সাদের সঙ্গে নিজের বিচ্ছেদের বিষয়টি জানান তিন্নি।

সালমা-শিবলী

কণ্ঠশিল্পী মৌসুমী আক্তার সালমা ও সাংসদ শিবলী সাদিকের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে গেছে। গত ২০ নভেম্বর রাজধানীর ধানমণ্ডি এলাকার একটি রেস্তোরাঁয় দুই পরিবারের উপস্থিতিতে তালাকের কার্য সম্পন্ন হয়েছে বলে জানা গেছে।

ফোক গায়িকা সালমা এনটিভির রিয়েলিটি শো ‘ক্লোজআপ তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ এর মাধ্যমে রাতারাতি সংগীতশিল্পী হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন। দিনাজপুরের সংগীত পরিবারের ছেলে শিবলী সাদিক পছন্দ করেন সালমাকে।    ২০১১ সালে সালমা ও শিবলী সাদিকের পারিবারিকাভাবেই বিয়ে সম্পন্ন হয়।
শিবলী সাদিক সংগীতচর্চা করলে পিতার উত্তরসূরি হিসেবে রাজনীতিতে মনোনিবেশ করেন। দিনাজপুর ৬ আসন থেকে পিতার মৃত্যুর পর প্রার্থী হন এবং সর্বশেষ সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়। সালমা ও শিবলির সংসারজুড়ে আসে একমাত্র কন্যা স্নেহা। রাজধানীর ধানমণ্ডি এলাকায় সালমা ও শিবলী বসবাস করে আসছিলেন। সম্প্রতি সালমার পারিবারিক দ্বন্দ্ব চরমে উঠলে সালমাই শিবলীকে ডিভোর্সের উদ্যোগ নেন।

সোহানা সাবা-মুরাদ পারভেজ

চলতি বছরের মার্চে অভিনেত্রী সোহানা সাবা ও পরিচালক মুরাদ পারভেজের বিয়ে বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটে। বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমে সাবা জানান, ব্যক্তিগত জীবনে আমি কী করছি, কী ভাবছি, কোথায় যাচ্ছি,পছন্দ-অপছন্দ এগুলো মানুষকে জানাতে পছন্দ করি না।   জানা গেছে মতের অমিল হওয়াতে তাদের এই বিচ্ছেদ।   এরই

শ্যামল মাওয়াল-নন্দিনী

টিভি নাটকের জনপ্রিয় মুখ শ্যামল মাওলা। তিনবছরের প্রেম পর্ব শেষ করে বিয়ে করলেন নন্দিনীকে। বিয়ের পর পেরিয়ে গেছে আরো তিন বছর। কিন্তু, দীর্ঘ এই ছয় বছরের সম্পর্কটাও শেষ পর্যন্ত টিকলো না।   নিজেদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার উল্লেখ করে কারণ হিসেবে কেবল স্ত্রীর সাথে বনিবনা না হওয়াকেই দায়ী করেন তিনি।

বছর শেষে নাটকে সাফল্য নেই তানজিন তিশার

মডেলিং দিয়ে শোবিজ অঙ্গনে যাত্রা শুরু হয়েছে তানজিন তিশার। এরপর নাটকেও নিয়মিত অভিনয় শুরু করেন তিনি। মাঝে চলচ্চিত্রে অভিনয় করবেন বলেও জানিয়ে ছিলেন। ফলে বেশ কয়েকটি ছবির প্রস্তাবও এসেছিল তার কাছে। কিন্তু সেগুলো নানা অজুহাতে ফিরিয়ে দিয়েছেন এ মডেল কন্যা।

সম্প্রতি জানিয়েছেন চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রস্তুত তিনি। তবে এই প্রস্তুতির পেছনে কিছু কারণও রয়েছে। বেশ কয়েকমাস ধরেই নাটকের কোনো কাজ নেই তার হাতে। বিশেষ করে ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করতে যে ধৈর্যের প্রয়োজন হয় সেটিও তার মধ্যে অনুপস্থিত। এ কারণে ধারাবাহিক নাটকে তার ওপর ভরসা পান না নির্মাতারা। তাই নিজ থেকেই ধারাবাহিক নাটকে কাজ করবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন।

অন্যদিকে খণ্ড নাটক তৈরি হয় উৎসবকেন্দ্রিক। বছরের অন্যান্য সময় যেসব একক নাটক তৈরি হয় সেগুলোর শিল্পী আগেই নির্ধারণ করা থাকে। তাই খণ্ড নাটকেও যে তানজিন তিশার ব্যস্ততা খুব বেশি, তাও নয়। ইদানীং হাতে অফুরন্ত সময় থাকায় ব্যস্ত হতে চাইছেন চলচ্চিত্রে। এ জন্য তিনি নিজেকে প্রস্তুত করছেন বলেও জানিয়েছেন।

চলচ্চিত্র ও নিজের ক্যারিয়ারের পরিকল্পনা নিয়ে তানজিন তিশা বলেন, ‘মাঝে কিছুদিন ছোট পর্দার কাজ থেকে বিরত থাকলেও এখন আবার ছোট পর্দার কাজে নিয়মিত হচ্ছি। তবে এই মুহূর্তে আমি চলচ্চিত্রে কাজ করার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। চাইলে যে কোনো ভালো প্রযোজনা সংস্থাই আমাকে নিয়ে কাজ করতে পারে। আমার যদি গল্প, চরিত্রসহ অন্য আনুষঙ্গিক বিষয় মনের মতো হয় তাহলে অবশ্যই চলচ্চিত্রে নিয়মিত হতে চাই।’

তবে চলচ্চিত্রে কাজ করার চুক্তি হওয়ার আগ পর্যন্ত টিভি নাটক আর বিজ্ঞাপনে নিজেকে ব্যস্ত রাখতে চান বলেও জানিয়েছেন এ তারকা। এদিকে বেসরকারি এক চ্যানেলে তার অভিনীত একটি ধারাবাহিক নাটক প্রচার হচ্ছে। এ নাটকটির শুটিংও শিগগিরই শেষ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন তানজিন তিশা।

মুক্তির পর শাকিব খানের ধূমকেতু’তে নতুন গল্পযোগ!

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি সিনেমার ইতিহাসে প্রথমবার কোন চলচ্চিত্র মুক্তির পর ত্রিশ মিনিটের মত গল্প যোগ হতে যাচ্ছে। এ রকম ঘটনা এর আগে কখনো ঘটেনাই কোন চলচ্চিত্রে।

এই চলচ্চিত্রের গল্প কাহিনীকার মুনির রেজা এটাই নিশ্চিত করেন। ‘ধূমকেতু’ পরিচালক সফিক হাসান জানান, ‘আসলে চলচ্চিত্রটি মূলত ডিজিটাল ফরমেটে করা হয়েছিল। আর গল্পের প্রয়োজনেই এই ত্রিশ মিনিট যোগ করা হয়েছে। আশা রাখি দর্শক আর হল মালিকরা যেহেতু গল্পটা ৩য় সপ্তাহ পর্যন্ত ধরে রেখেছে। আমি এটা নিশ্চিত যে নতুন দর্শকরাও এ গল্পটা আরো ভালোভাবে বুঝতে পারবে।’

আর কিছুটা তান্হার তানসিয়ার শটও এ গল্পে যোগ করা হয়েছে বলে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানানো হয়। ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের এ বছরের শেষ চলচ্চিত্র ‘ধূমকেতু’।

ইতোমধ্যেও শাকিব ভক্তরা ঈদের পর ‘শিকারী’ সফল ব্যবসার পর এই প্রথম মিডিয়া পাড়ায় আলোড়ন সৃষ্টি করে সফিক হাসান পরিচালিত ‘ধূমকেতু’ চলচ্চিত্রটি।

জাজ মাল্টিমিডিয়া এই চলচ্চিত্রের ১০০ এর বেশি হলে পরিবেশনার দায়িত্ব নেয়। এর পরই শুরু হয় “ধূমকেতুর” নতুন চমক তারা। প্রথম দিন থেকে টানা ৩য় সপ্তাহ পর্যন্ত এই চলচ্চিত্রের শুরু হয় কারিশমা। যদিও দ্বিতীয় সপ্তাহের ৬৫+ যোগ হলেও এই চলচ্চিত্রটি আর সাথে যোগ হয় আরো নতুন ৭০টি হল।

মুন্নি প্রোডাকশনের কর্ণধার মুনির রেজা জানায়, বছর শেষে ব্যবসা তুঙ্গে অনেক টিটকারী মুলক কথা শুনতে হয়েছে শাকিব খানের ধূমকেতু চলচ্চিত্রটি নিয়ে। আমি খুব আশাবাদি ছিলাম এই চলচ্চিত্র নিয়ে। প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত অনেক কান কথা শুনেছি। আমি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান নিয়ে বাংলা চলচ্চিত্রে বিনিয়োগ করতে এসেছি। কিন্তু কিছু দুষ্ট চক্র চায়, আমি যেন কোন ভাবেই ব্যাবসা সফল না হই। আমি শাকিব খানকে নায়ক করে ছবি বানিয়েছি শফিক হাসান নামক একজন নবিন পরিচালককে দিয়ে। আগামী দিনে তো অন্য হিরো আর অন্য পরিচালক দিয়ে চলচ্চিত্র বানাতেই পারি। আমি আগে থেকেই ব্যবসায়ী মানুষ।’

আমাকে সবাই এ রকম হেও প্রতিপণ্য করলে, আমি তো আর এ ব্যবসায় জড়াবো না। বাংলাদেশের এই একটা বড় সমস্য! কোন মানুষ যদি ভাল কিছু করতে চায় তার পিছনে ৮০/৯০ জন লেগে থাকে। উপরে উঠার সিড়ি থেকে জোর করে নামিয়ে দেয়। সবার মত যদি আমিও বাংলা সিনেমায় বিনিয়োগ করা ছেড়ে দেই। একদিন ঠিকই দেখা যাবে আগের মতই বাংলা চলচ্চিত্র আবার হারিয়েই যেতে বসবে। এত পিছু না লেগে থেকে সবাই একসাথে কাজ করি।

অন্যদিকে পরিচালক সফিক হাসান জানান, ‘মাঝখানে এমন একটি সময় ছিল শাকিব খানের চলচ্চিত্র মানেই ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র। সেটার ধারাবাহিকতা আবার ফিরতে চলেছে। এটা তো মন্দের কিছু নয়। কিছু অসাধু চক্র ও কিছু অনলাইন পোর্টাল নিজের স্বার্থ হাসিল করার জন্য ভিত্তিহীন আজে-বাজে প্রচার করে যাচ্ছে। আমি প্রথম দিনে থেকে ৪র্থ দিন পর্যন্ত নিজে বন্ধুদের সাথে হলে গিয়ে চলচ্চিত্রটি দেখেছি। অনেক প্রশংসাও পেয়েছি। বেশ করে অনেক দর্শকের কাছেও ভাল সাড়া পাচ্ছি। অনেক কাজ নিয়েই অনেকেই কথা বলছে। যা আমার পরবর্তী কাজে আরোও উৎসাহ যোগাবে। ইতিমধ্যে শাকিব খানকে নিয়ে আবার নতুন চলচ্চিত্র করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। এবারের কাজটি নতুন নায়িকা নিয়ে করবো। যদিও নতুন নায়িকার খোঁজে আছি। পেয়ে গেলে পরবর্তীতে সবাইকে চলচ্চিত্রের নাম জানাবো।’

করণের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনুশকার!

বরাবরই তিনি না কি এরকমটা করে থাকেন! স্রেফ ক্ষমতাশালী বলেই কেউ কিছু বলতে সাহস পান না! এরকমটাই দাবি করছেন আনুশকা শর্মা। তবে রাখঢাক তাঁর স্বভাবে নেই বলে তিনি চুপ করে থাকলেন না।

সোজাসাপটা জানিয়ে দিলেন- করণ জোহর বলিউডের নায়িকাদের গায়ে বেশ বাজেভাবে হাত দিয়ে থাকেন!

সম্প্রতি এমনই বিস্ফোরক কথা বেরিয়ে এল আনুশকা শর্মার মুখ থেকে। কফি উইথ করণ সিজন ৫-এর এক পর্বে তিনি আর ক্যাটরিনা কাইফ এসেছিলেন করণ জোহরের অতিথি হয়ে। সেখানেই কথায় কথায় করণ জোহর জানান- অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল শুট করার সময়ে তিনি প্রায় আনুশকা শর্মার প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন! তার পরেই সবার সামনে এই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন নায়িকা।

আনুশকা বলেন, ‘এই প্রসঙ্গটা এখন না তোলাই উচিত হবে! তুমি আমার প্রেমে পড়ে গিয়ে ওইরকম করতে বুঝি? আমি একেক সময় ভেবেছি থানা-পুলিশ করব কি না! বলতে বাধ্য হচ্ছি- তুমি অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল শুট করার সময় আমার গায়ে খুবই বাজে ভাবে হাত দিতে!’

সবাই প্রথমে ভেবেছিলেন, আনুশকা বোধহয় ঠাট্টা করছেন। সেই জন্যেই কথাটা শোনার পরে রসিকতা করেন ক্যাটরিনা কাইফ, ‘বোধহয় তোমার ভেতর থেকে আগুন বের করার জন্যে ওরকম করত!’ কিন্তু তার পরেই বুঝতে পারেন ক্যাটরিনা- আনুশকা ঠাট্টা করছেন না। কেন না, একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ করণ জোহরের বিরুদ্ধে আনতে থাকেন আনুশকা। ‘শুধু আমিই নই, দিন কয়েক আগে এই একই অভিযোগ করেছে জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজও! জ্যাকলিনের দাবি, কয়েক দিন আগেই এক পার্টিতে করণ ওর গায়ে খারাপ ভাবে হাত বুলিয়েছে!’

বেগতিক দেখে শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দেন ক্যাটরিনা। বলেন, ‘এইসব কথাবার্তা আপাতত বন্ধ থাক! আমি তোমাদের দুজনকেই খুব ভালবাসি! তাই চাই না- দু’জনের কেউই কোনোরকম সমস্যায় পড়ুক!’ ক্যাটরিনার এই অনুরোধের পরে প্রসঙ্গ বদলায়! কিন্তু শেষ পর্যন্ত কি ছাড় পাবেন করণ জোহর?
দেখা যাক!

ফ্যাশনে পুরুষদের ১৩টি ভুল এবং সেগুলো এড়ানোর উপায়

প্রতিটি পুরুষই ভালোভাবে পোশাক পরার চেষ্টায় স্টাইল সম্পর্কিত বেশ কিছু জিনিস শেখেন। এবং অনিবার্যভাবে কিছু ভুলও করেন।
আপনি যদি সেই ভুলগুলো না করতে চান এবং ভুল করলে কীভাবে তা ঠিক রা সম্ভব তা জানতে চান তাহলে পড়ুন:
১. “চিকন লোকদের পাগুলো আরো প্রশস্ত দেখানোর জন্য বুট কাট প্যান্ট পরা উচিৎ”। এই ধারণাটি ঠিক নয়। বরং বুট কাট প্যান্টে চিকন লোকদেরকে সবচেয়ে বাজে লাগে।

২. “কাঁধ এবং বক্ষে শার্টগুলো ব্যাগি হলে ভালো”। এর চেয়ে বরং দেহের সঙ্গে ফিট শার্ট পরাই সবচেয়ে ভালো।
৩. “সঠিক পোশাক পরলেই ভালোভাবে পোশাক পরা হয়”। একটি সাধারণ ভুল ধারণা হলো, বেশি পোশাক পরলেই বুঝি ভালোভাবে পোশাক পরা হয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে, সবসময়ই কেতাদুরস্ত স্যুট পরার চেয়ে বরং ধারালো ক্যাজুয়াল পোশাকে অনেক সময় পুরুষদেরকে বেশি ভালো লাগে। আর সবসময়ই পরিস্থিতির সঙ্গে মানানসই পোশাক পরতে হবে।
৪. “শর্টস পরা ঠিক না এবং শুধু ১২ বছরের কম বয়সী বা ক্রীড়াবিদ হলেই শর্টস পার উচিৎ”। অনেক পুরুষই এখন সচেতন হয়েছেন, গরমের সময় শর্টস পরাটাই সঠিক কাজ। এমনকি শিথিল অফিস পরিবেশেও শর্টস পরাটা এখন গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠেছে। শুধু কার্গো শর্টস না পরলেই হয়।

৫. “কার্গো শর্টসগুলো খুবই আকর্ষণীয় কারণ এতে থাকা পকেটগুলোতে আপনি সবকিছু রাখতে পারবেন”। ধারণাটি ভুল। কারণ এখন আর কার্গো শর্টস এর প্রচলন নেই। সুতরাং যে কোনো মূল্যে কার্গো শর্টস এড়িয়ে চলুন। তার চেয়ে বরং পাতলা সুতির শর্টস পরুন।
৬. “শুধু নির্মাণ কর্মী এবং নিম্নরুচির লোকরাই বুট পরে”। এটিও সেকেলে ধারণা। যে কোনো মানুষই বুট জুতা পরতে পারেন।

৭. “বোট শু সবচেয়ে ফ্যাশনদুরস্ত শু”। গ্রীষ্মকালে বোট শু পরা ভালো। কিন্তু তার মানে এই নয় যে এই জুতাই সবচেয়ে ফ্যাশনদুরস্ত জুতা। ফ্যাশনের জন্য আরো নানা ধরনের সুন্দর সুন্দর জুতা আছে।
৮. “যে জুতার আঙ্গুলের দিকটা বর্গাকৃতির সে জুতাই ভালো”। এই ধরণের জুতা এখন আর গ্রহণযোগ্য নয়। পুরুষদেরকে বরং এখন এই ধরনের জুতা থেকে দুরে থাকতে বলা হয়।
৯. “জুতার সঙ্গে মানানসই বেল্ট পরতে হবে। গায়ে কী পরলেন না পরলেন তাতে কিছুই যায় আসে না। ” বিশেষ কোনো উপলক্ষে এই কথাটি সত্য। কিন্তু ব্যবসায় স্যুট বা সাধারণ কোনো উপলক্ষে কথাটি সত্য নয়।
১০. “কালো জুতা সবকিছুর সঙ্গেই পরা যায়”। কথাটি সত্য নয়। আপনি যদি সবকিছুর সঙ্গে একব জুতা পরতে চান তাহলে মাঝারি বাদামি জুতা কিনুন।
১১. “টাইয়ের সঙ্গে পকেট স্কোয়ার ম্যাচ করতে হবে”। এ ধারণাটিও ঠিক নয়।
১২. “কালো স্যুট সবচেয়ে বহুমুখি এবং সেরা রঙের স্যুট। ” ঠিক নয়। বরং নেভি বা কাঠকয়লা রঙের স্যুট সবচেয়ে বহুমুখি।
১৩. “বুনন করা সোয়েটার ফ্যাশনের জন্য সবচেয়ে ভালো। ” এই ধরনের সোয়েটার এখনে সেকেলে হয়ে গেছে। বরং অন্যান্য সোয়েটারই এখন বেশি ফ্যাশনদুরস্ত।

জিতের কারণে আটকে গেলেন বাপ্পী

ঘোষণা দেয়া হয়েছিল বছরের একেবারে শেষের দিন মুক্তি পাবে সাফি উদ্দীন সাফি পরিচালিত ও বাপ্পী সাহা এবং নবাগত নায়িকা মুগ্ধতার ছবি ‘মিসকল’।

শেষ পর্যন্ত ঘোষণার ওপর অটল থাকতে পারলেন না ছবির প্রযোজক। একই তারিখে জিৎ অভিনীত ভারতীয় আমদানিকৃত ছবি ‘অভিমান’ মুক্তি দেয়া হবে বলে জানা গেছে। তাই মন্দার বাজারে একইদিনে দুটি বাণিজ্যিক সিনেমা মুক্তি পেলে ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন প্রযোজকরা। এ অজুহাত তুলেই বাপ্পীর ছবি মুক্তি দেয়া থেকে বিরত থাকছে এ ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান।

এ প্রসঙ্গে মিসকল সিনেমার পরিচালক বলেন, ‘আমাদের সিনেমার বাজার খুবই ছোট। তাছাড়া সিনেমার মন্দা অবস্থা যাচ্ছে। এ অবস্থায় একইদিনে দুটি সিনেমা মুক্তি পেলে আর্থিকভাবে লোকসান হবে। তাই বাধ্য হয়েই সরে দাঁড়িয়েছি। শিগগিরই মুক্তির নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে।’

তবে হুট করে ভারতীয় আমদানি করা ছবির মুক্তি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা বইছে চিত্রপাড়ায়। ‘মিসকল’ ছবিটি সব রকমের প্রস্তুতি শেষ করার পরও মুক্তি দিতে না পারার জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ছবি সংশ্লিষ্ট সবাই। দেশের চলচ্চিত্রের এ করুণ মুহূর্তে ভারতীয় আমদানি ছবি মুক্তির অনুমোদন দিয়ে চলচ্চিত্র শিল্পকে হুমকির মুখে ঠেলে দেয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশীয় নির্মাতারা।

কলকাতার নায়ক জিৎ অভিনীত ‘অভিমান’ সিনেমাটি আমদানি করেছে খান ব্রাদার্স ফিল্মস। পরিবেশনায় আছে জাজ মাল্টিমিডিয়া।

মঙ্গলবার পর্যন্ত ৫০টির মতো সিনেমা হলে মুক্তি দেয়ার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছে খান ব্রাদার্স ফিল্মসের কর্ণধার সাইফুল ইসলাম চৌধুরী।

এর আগে রাজ চক্রবর্তীর পরিচালনায় এ ছবিটি গত দুর্গাপূজায় কলকাতায় মুক্তি পায়। এতে জিতের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন শুভশ্রী। এছাড়াও অভিনয় করেছেন সায়ন্তিকা, খরাজ মুখার্জি, অঞ্জনা বসু প্রমুখ।

চুল পড়া রোধে করণীয়

নারী ও পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই চুল পড়া একটা বড় সমস্যায় পরিণত হয়েছে এখন। পরিবেশ দূষণ, ঘুম ও খাওয়া দাওয়ার ঘাটতি, হরমোনের সমস্যাসহ বেশ কিছু কারণেই সাধারণত চুল পড়ে।

তাই সময় থাকতে আপনার মাথায় চুল যেন থাকে, সে ব্যাপারে সতর্ক হওয়া উচিত। এ কারণে কিছু টিপস মেনে চলতে পারেন-

নিয়মিত নারিকেল তেল মাথায় দেওয়া : চুল সুস্থ ও সুন্দর রাখতে নিয়মিত মাথায় নারিকেল তেল ম্যাসাজ করা খুব জরুরি। নারিকেল তেল মাথায় চুল গজাতে, বড় হতে সাহায্য করে। চুল পড়া রোধ করে।

আমলকীর রস চুলে : ভিটামিন সি-এর বড় এক উৎস আমলকী। এটি খুব ভালো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও। এটি আপনার চুল পড়া রোধে খুব ভালো ভূমিকা রাখতে পারে। তাই আমলকী থেতলে একটু লেবুর রস মিশিয়ে মাথার তালুতে লাগান।

চুলের যত্নে ডিম : চুল পড়া রোধে ডিম দারুণ উপকারী। এতে প্রোটিন ও মিনারেল আছে অনেক। ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে এক চামচ অলিভ অয়েল ভালোভাবে মিশিয়ে মাথার তালুতে লাগান। ২০ মিনিটের মতো তা মাথায় রেখে ঠাণ্ডা পানি ও শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

আকুপ্রেশার করুন : চুল পড়া বন্ধে আকুপ্রেশার খুব উপকারী এক উপায় মনে করা হয়। বালায়াম নামে এই টেকনিক মাথার তালুতে রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে চুল গজাতে সাহায্য করে। পদ্মাসনে বসে আপনার এক হাতের নখ দিয়ে আরেক হাতের নখ ঘষুন। ১০/১৫ মিনিট ধরে এমনটা করুন। নিয়মিত এমন করে উপকার পাবেন।

প্রোটিন পূর্ণ খাবার খান : চুল জন্মানো ও যত্নে প্রোটিন খুব জরুরি। তাই প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার যেমন: দুধ, পনির, শিম, বাদাম, মুরগির মাংস, মাছ এসব খান।

লৌহসমৃদ্ধ খাবারও : খাবারে লৌহের ঘাটতি থাকলে চুল পড়ে দ্রুত। তাই পালং শাক, ডাল, সয়াবিন, মাংস, ডিম, মাছ এসব খাবার খেতে হবে।

অতি মাত্রায় রূপচর্চা : চুলের যত্নে অতি মাত্রায় রূপচর্চা করলে উল্টো চুলের ক্ষতি হয়। তাই সাবধান হতে হবে এক্ষেত্রে।

জেনে নিন, রাতে কী না করলে ঘুমই আসে না শাহরুখের?

ক্লান্ত হয়ে থাকলে ঘুম এসে যায় সহজেই! সে সাধারণ মানুষ হোন বা সেলেব্রিটি- সবার ক্ষেত্রেই এক নিয়ম! যদি অনিদ্রার অসুখ না থাকে! কিন্তু যত ক্লান্তই থাকুন না কেন, রোজ রাতে একটা বিশেষ কাজ না করলে ঘুমই আসে না বলিউডের বাদশার! সম্প্রতি যা নিজের মুখেই কবুল করেছেন শাহরুখ খান।

সম্প্রতি ‘রইস’ ছবির প্রচারে এক অনুষ্ঠানে এসে শাহরুখ জানিয়েছেন, খুব ছোটবেলা থেকেই তিনি কমিকস বই আর কার্টুনের প্রতি অদম্য এক টান অনুভব করেন।

বয়স বাড়লেও সেই টান এতটুকু ফিকে হয়নি। এমনকী এও জানিয়েছেন শাহরুখ, একটা সময় তিনি রীতিমতো লোকের কাছে হাতও পেতেছেন প্রিয় কমিকস বই কেনার জন্যে! তা, শাহরুখের ঘুমের সঙ্গেও কি এই কমিকস পড়ার কোনও রকম সম্পর্ক রয়েছে?

সময় আর ব্যস্ততা ইদানিং একটু হলেও নষ্ট করে দিয়েছে শাহরুখের বই পড়ার অভ্যাসটা! তবে কার্টুন দেখার নেশা তাঁর একটুও কমেনি। এখনও শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে পছন্দের কার্টুন রেকর্ড করে রাখেন নায়ক। তারপর রাতে বাড়ি ফিরে, ঘুমাতে যাওয়ার আগে সেই কার্টুন এপিসোডগুলো তাঁর দেখা চাই-ই চাই! এই নিয়মের সাধারণত অন্যথা হয় না বলেই জানিয়েছেন তিনি!

সুন্দর অভ্যাস, তাই না?

আড়ালে চলে যাচ্ছেন আলিয়া

ব্যক্তিগত স্পেস চাইছেন আলিয়া ভাট। মুখে না বললেও হাবে ভাবে তা বুঝিয়ে দিয়েছেন এই বলিউড অভিনেত্রী।

সম্প্রতি নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট পাবলিক থেকে প্রাইভেট করা সেটাই প্রমাণ করে।

সেলিব্রিটি মানেই তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কৌতূহল থাকবে। তাদের জীবনটা আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের মতো নয়। হাজার হাজার চোখ তাদের দিকে তাকিয়ে থাকে। এই তারকাদের খোঁজ রাখতে গিয়ে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদের ব্যক্তিগত জীবনে নাক গলিয়ে ফেলেন সবাই। তাদের প্রত্যেকটি পদক্ষেপকে প্রায়ই প্রশ্ন করা হয়।

কিন্তু ব্যক্তিগত স্পেস তো তাদেরও প্রয়োজন। কিছু কিছু বিষয় শুধু আপনজনদের সঙ্গেই ভাগ করে নিতে চান তারা।
হয়তো তাই জন্যই নিজের সোশ্যাল মিডিয়া সাইটকে প্রাইভেট করে দিলেন আলিয়া ভাট। এতদিন আলিয়ার ইনস্টাগ্রাম সেল্‌ফি এবং ইনস্টাগ্রাম ছবি নিয়ে মাতামাতি করেছেন ভক্তরা। এবার নিজেকে খানিকটা গুটিয়ে নিলেন তিনি। এখন কারা তার ব্যক্তিগত মুহূর্তের সাক্ষী থাকবে তা বেছে নেবেন আলিয়া নিজে।

এবার বাংলাদেশে বড় পর্দার জন্য নির্মিত হচ্ছে সত্যজিৎ রায়ের ‘ফেলুদা’

সত্যজিৎ রায়ের বিখ্যাত সৃষ্টি গোয়েন্দা চরিত্র ‘ফেলুদা’। ফেলুদা যতটা বিখ্যাত সাহিত্যের পাতায়; সমান ভাবে বিখ্যাত চলচ্চিত্রের পর্দায়। সেই ফেলুদাকে নিয়ে প্রথম বারের মত বাংলাদেশে বড় পর্দার জন্য নির্মিত হতে যাচ্ছে চলচ্চিত্র।

নাহিদ হাসানের পরিচালনায় দি ক্রিয়েটর’স ফিল্মস এর ব্যানারে নতুন এ চলচ্চিত্রের নাম “শহর ব্যাপি খুন খারাপি”। চলচ্চিত্রটির মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছেন নিঝুম ফারুকী। ২৫শে ডিসেম্বর চলচ্চিত্রটির নাম ঘোষণা করা হয় ও দি ক্রিয়েটর’স ফিল্মস এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে চলচ্চিত্রটির হাতে আঁকা ফ্যান্টাসি পোস্টার প্রকাশ করা হয়। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে চলচ্চিত্রটির শুটিং শুরু হবে। আসছে ১লা জানুয়ারি চলচ্চিত্রের ফার্স্ট লুক প্রকাশ করা হবে বলে জানানো হয়।

ফ্যান্টাসি পোস্টার লিংকঃ

Shohor Baypi Khun Kharapi | Motion Poster | Feluda | Directed By Nahid Hasan | Bengali Movie 2017

বিয়ের আগে দু’জনেরই যা জানতে হবে

বিয়ের বিষয়টি নাকি স্বর্গে নির্ধারিত হয়। অনেকেই ভাবেন, বিধাতা এ কাজ সম্পন্নের  দায়িত্ব আমাদের ওপরই দিয়েছেন।

তাই বিয়ের বিষয়টি আসলেই জাতি-ধর্ম-বর্ণ ও সংস্কৃতির ভিত্তিতে মানুষ কত আয়োজনই না করে। দুজনের সুখের জীবনের জন্য কত হিসাব-নিকাশই না করতে হয়। এখানে বিশেষজ্ঞরা এমনই বিশেষ ৫ ধরনের বিষয় তুলে ধরেছেন। গাঁটছড়া বাঁধার আগে এগুলো সম্পর্ক খোঁজ-খবর নেওয়া ভালো।

১. পারিবারিক ও জেনিটিক স্বাস্থ্য: একে অপরের পরিবার নিয়ে আলোচনা করা ভালো। হবু বর-কনের পরিবার এবং তার স্বাস্থ্য সম্পর্কে আলোচনা স্বাস্থ্যকর চর্চা। কারো পরিবারে বিশেষ কোনো বংশগত রোগ বা কোনো সদস্যের বিশেষ সমস্যা সম্পর্কে জানান দিতে হবে। সার্জারি, ক্রনিক সমস্যা বা জেনেটিক অবস্থাসহ অন্যান্য বড় স্বাস্থ্যগত তথ্য জানাটা জরুরি। বিয়ের আগে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাউন্সেলিং করার পেশাদার মানুষ রয়েছেন। তারা বিয়ের আগে বর ও কনের জেনেটিক ব্লাড ডিসঅর্ডার পরীক্ষা করতে বলেন। অধিকাংশ ক্ষেত্রে থ্যালাসেমিয়া সাধারণ সমস্যা হয়ে দেখা দেয়। এ সমস্যায় দেহে অল্প পরিমাণ লোহিত রক্তকণিকা তৈরি হয়। হিমোগ্লোবিমানের মাত্রা কম থাকে। আর এ সমস্যা স্বামী-স্ত্রীর থাকলে শিশুও একই সমস্যা নিয়ে জন্ম নেয়। এ ধরনের বিভিন্ন বিষয়ে খবর নিতে হবে।

২. অর্থনৈতিক অবস্থা: এটা বাস্তবিক বিষয়। সাধারণত বরের অর্থনৈতিক অবস্থাই বড় বিষয় মনে করা হয়। আসলে উভয়ের এবং উভয় পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা থাকতে হয়। অর্থ বিষয়ক জটিলতার কারণে বিবাহিত জীবন বিপর্যস্ত হতে পারে। আয় সম্পর্কে ধারণা, ভবিষ্যতের চিন্তা, ঋণের পরিমাণ ইত্যাদি সম্পর্ক মৌলিক ধারণা থাকতে হবে।

৩. আইনি জটিলতা: প্রত্যেক পরিবারের নিজস্ব ঝামেলা থাকতে পারে। বিশেষ করে আইনি জটিলতা থাকলে তার সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা থাকতে হবে। যদি থাকে তবে তা কি ধরনের এবং একে সামলাতে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা দরকার। বিশেষ করে কারো পরিবারের বিরুদ্ধে অপরাধ বিষয়ক অভিযোগ রয়েছে কিনা তা জানা জরুরি। এখানে স্বচ্ছতা দরকার। নয়তো ভবিষ্যতে অনেক ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হবে।

৪. ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক বিশ্বাস: একটা সময় ধর্ম ও সংস্কৃতি নিয়ে মানুষের মাঝে অনেক রক্ষণশীলতা ছিল। এখনো আছে। তবে অনেক কমে এসেছে। তবুও যার যার বিশ্বাস অনুযায়ী কিছু জানার থাকলে জেনে নিতে হবে। প্রত্যেক মানুষই ধর্ম ও সংস্কৃতি দ্বারা প্রভাবিত। বিয়ের ক্ষেত্রে বিষয়টি খুবই স্পর্শকাতর হয়ে উঠতে পারে। এমনকি দুজনের ধর্ম-সংস্কৃতি এক হলেও ভিন্ন চিন্তা-ধারার অধিকারী হতে পারেন দুজনই। এ বিষয়ে খোলামেলা আলাপ করে নিতে হবে।

৫. আচরণগত বৈশিষ্ট্য: পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে আমাদের চিন্তা ও আচরণ কেমন? এটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এর ওপর নির্ভর করবে আপনি সমাজের সঙ্গে কিভাবে যুক্ত হবেন। বিয়ের আগে বর-কনের আচরণগত বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে ধারণা পাওয়া দরকার। বিয়ে, সংবার, সন্তান এসব নিয়ে দুজনের আচার-আরচণ কি হবে তা জানাটা নিশ্চিয়ই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

৬. সন্তান ও অন্যান্য: ধর্মীয় বিধি-নিষেধ ও সংস্কৃতির কারণে অনেকে হয়তো সন্তান ও সেক্স বিষয়ে কথা বলতে পারেন না। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে,এ বিষয়ে কথা বলাটা প্রয়োজন। বিয়ের পর এটা বাস্তব বিষয়। কাজেই এড়িয়ে গিয়ে লাভ নেই। সন্তান নেওয়ার বিষয়ে দুজনের কি কি ইচ্ছা ও পরিকল্পনা রয়েছে তা নিয়ে কথা বলতে হবে। আর যৌনতা সব মানুষের জীবনেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের একটি। তাই বিধি-নিষেধ টপকে না গিয়ে যতটা সম্ভব এ বিষয়ে আলাপ করা ভালো।

নতুন চলচ্চিত্রে এলিনা শাম্মি

এলিনা শাম্মি। অভিনয়, মডেলিং ও উপস্থাপনা নিয়ে ব্যস্ত আছেন তিনি। সম্প্রতি ‘গন্তব্য’ শিরোনামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করলেন তিনি। অভিনয়ের পাশাপাশি ছবিটির সংলাপও শাম্মির লেখা। ছবিটিতেও আরো অভিনয় করেছেন ফেরদৌস, আইরিনসহ অনেকে।
এছাড়া শাম্মি ‘লেডি গোয়েন্দা’ শিরোনামে একটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করছেন। পাশাপাশি টেলিফিল্ম ও খণ্ডনাটক নিয়েও চলছে তার ব্যস্ততা। অন্যদিকে শাম্মি একুশে টেলিভিশনে নিয়মিত একটি লাইভ অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করছেন।
এত কাজের মধ্যে নিজের ক্যারিয়ার ফোকাস আসলে কোথায়?
এমন প্রশ্নে উত্তরে শাম্মি বলেন, ‘অভিনয় আমার ক্যারিয়ার ফোকাস। একজন অভিনেত্রী হিসেবেই পরিচিতি পেতে চাই। পাশাপাশি যেসব কাজ করছি সেগুলোও ভালোলাগা থাকে। কিন্তু একটি বিষয়ের প্রতি ক্যারিয়ার ফোকাসটা না থাকলে গন্তব্য পৌঁছানো যায় না। তাই অন্যান্য কাজের পাশাপাশি অভিনয়টাকেই আমি মূল পেশা হিসেবে নিতে চাই।’