বিজয়ের মাসেও নেই দেশপ্রেমের ছবি

ক্যালেন্ডারে ডিসেম্বর মাস এলেই বাঙালিদের সামনে ভেসে উঠে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের বিষাদ স্মৃতি। যে স্মৃতির কারণেই বাঙালি জাতি ফিরে পেয়েছেন অহংকার করার মতো আত্মপরিচয়। পেয়েছেন শোষণ ও নিপীড়নের হাত থেকে মুক্তি। সারা বছর জুড়ে চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ থাকলেও ডিসেম্বর মাসে একটু বেশিই চোখে পড়ে এটি।

সংস্কৃতির নানা শাখায় যেমন টিভি নাটক, থিয়েটার, টক শো ও চলচ্চিত্র সব মাধ্যমেই থাকে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক নানা আয়োজন। যা নাগরিকদের মধ্যে দেশাত্মবোধ ও জাতীয় চেতনা শানিত করতে অবদান রাখে। প্রতি বছরই ডিসেম্বর এলেই মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গল্প নিয়ে মুক্তি দেয়া হয় বিশেষ চলচ্চিত্র। তবে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ছবি প্রেক্ষাগৃহে না থাকলেও চ্যানেলে প্রিমিয়ার করা হয়।

কিন্তু এবার ডিসেম্বরে সে ধরনের কোনো প্রস্তুতি চ্যানেল কিংবা প্রেক্ষাগৃহ- কোথাও চোখে পড়ছে না। অথচ বিজয়ের ৪৫ বছর পূর্ণ করবে বাংলাদেশ। অবশ্য বিজয় দিবসের দিনে বিটিভিসহ বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে পুরনো মুক্তিযুদ্ধের ছবি প্রদর্শন করার বিষয়টির নিশ্চয়তা পাওয়া গেছে। কিন্তু পুরনো ছবি কেন? মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গল্পের এতই কী সংকট। যে বাণিজ্যিকভাবে মুক্তিযুদ্ধকে নিয়ে ছবি নির্মাণ করা হচ্ছে না?

বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণের সঠিক খবরটাও কারও জানা নেই। যারা নিয়মিতভাবে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণ করে এসেছেন তারাও এখন এ বিষয়ে নীরবতা পালন করছেন। আবার কেউ কেউ মুক্তিযুদ্ধের মতো বিশাল একটি বিষয় নিয়ে ছবি নির্মাণের নেপথ্যে থাকা নানা প্রতিবন্ধকতার কথাও জানিয়েছেন। কিছুদিন আগেও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণের বিষয়টি গর্বের চোখেই দেখা হতো। সেই গর্বের বিষয়টি এখন নানা কারণে অনাগ্রহের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

বর্তমানে যে তরুণ নির্মাতারা সিনেমা বানাতে ইন্ডাস্ট্রিতে আসছেন তাদের মধ্যে এ বিষয়টি নিয়ে কোনো ভাবনাই যেন নেই। কিন্তু কেন? এ প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন পরিচালক মোরশেদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘ছবিতে সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে রাজনৈতিক বিধিনিষেধ, পুঁজিস্বল্পতা এবং সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে এখন মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণে আগ্রহ হারাচ্ছেন স্বনামধন্য চলচ্চিত্রকাররা। ফলে নতুনরাও এ বিষয়টি নিয়ে ছবি বানাতে উৎসাহ পাচ্ছেন না।’ এছাড়াও এ ধরনের ছবি নির্মাণের পর মুক্তিবিষয়ক অনেক জটিলতা থাকে বলে জানিয়েছেন অনেক নির্মাতা।

নির্মাতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকার যে অনুদান প্রদান করে থাকেন, তাতে করে একটি মুক্তিযুদ্ধের পূর্ণাঙ্গ চলচ্চিত্র নির্মাণ সম্ভব হয় না। ফলে গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণে নির্মাতাদের আগ্রহটা দিন দিন শূন্যের কোঠায় নেমে আসছে। এমনটি চলতে থাকলে বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তির জন্য নতুন ছবি তৈরি হবে না। ফলে বিজয়ের মাসেও প্রেক্ষাগৃহগুলো মুক্তিযুদ্ধের ছবিশূন্যই থাকবে।

তবে বছর শেষে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ছবি না থাকলেও বাণিজ্যিক ধারার ছবি মুক্তির প্রস্তুতি কিন্তু চলছে বেশ বড় আকারেই। তার ওপর বিজয় দিবসটা এখন উৎসবে রূপ পেয়েছে। এ উৎসবে ব্যবসা চাঙ্গা করতেই চলছে এফডিসি কেন্দ্রিক ছবি মুক্তি তোড়জোড়। এরমধ্যে রয়েছে, ‘ধূমকেতু’, ‘এক পৃথিবী প্রেম’, ‘সত্তা’, ‘মুখোশ মানুষ : দ্য ফেক’, ‘আমি তোমার হতে চাই’, ‘প্রেমী ও প্রেমী’, ‘মেয়েটি এখন কোথায় যাবে’ নামের ছবিগুলো।

এর মধ্যে আগামী ৯ ডিসেম্বর মুক্তি পাবে ‘ধূমকেতু’। শফিক হাসান পরিচালিত এ ছবিতে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়ক শাকিব খান, পরীমনি, তানহা তাসনিয়া প্রমুখ। ত্রিভুজ প্রেমের কাহিনী নিয়ে নির্মিত হয়েছে ‘ধূমকেতু’ ছবিটি। কয়েক মাস আগে ছবিটির ট্রেলার প্রকাশ পেয়েছে। যা আলোচনার পালে হাওয়া দিচ্ছে এখনও। কয়েক দফায় মুক্তির তারিখ পিছিয়ে গেলেও এবার আর হেরফের হচ্ছে না বলেই জানা গেছে।

২৫ ডিসেম্বর বড়দিন উপলক্ষে ‘এক পৃথিবী প্রেম’ মুক্তি দেয়া হবে ঘোষণা করেছেন পরিচালক এসএ হক অলিক। এ ছবিতে আইরিনের সঙ্গে জুটি হয়ে অভিনয় করেছেন নবাগত নায়ক আসিফ। শাকিব খান-পাওলি দাম অভিনীত আলোচিত ছবি ‘সত্তা’র নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে গত মাসেই। হাসিবুর রেজা কল্লোল পরিচালিত ছবিটি মুক্তির তারিখ ঘোষণা না করা হলেও চলতি মাসেই ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন পরিচালক।

সোহানী হোসেনের ‘মা’ গল্প অবলম্বনে নির্মিত এ ছবিতে আরও অভিনয় করছেন শিমুল খান, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, নাসরিন, রিনা খান, ডন ও কাবিলা। ডিসেম্বরে মুক্তির তালিকায় রয়েছে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘প্রেমী ও প্রেমী’ ছবিটিও। এতে আরেফিন শুভ ও নুসরাত ফারিয়া জুটি হয়ে অভিনয় করেছেন। ছবিটি পরিচালনা করেছেন জাকির হোসেন রাজু।

এছাড়াও জাজের ব্যানারে নির্মিত হওয়া ইমদাদুল হক মিলনের গল্প অবলম্বনে নাদের চৌধুরীর ‘মেয়েটি এখন কোথায় যাবে’ ছবিটিও মুক্তির জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পরিচালক। এ ছবিতে প্রথমবারের মতো জুটি হয়ে অভিনয় করেছেন জলি ও শাহরিয়াজ। অনন্য মামুন পরিচালিত ‘আমি তোমার হতে চাই’ ছবিটি মুক্তির তারিখ চূড়ান্ত করা হয়েছে ১৬ ডিসেম্বর। এতে অভিনয় করেছেন বিদ্যা সিনহা মিম ও বাপ্পী সাহা।

বিজয় দিবসে মুক্তি দেয়া হবে ‘শেষ চুম্বন’ নামের আরও একটি ছবি। মুন্তাহিদুল লিটন পরিচালিত ছবিটিতে অভিনয় করেছেন ভিট তারকা সানজিদা তন্ময়, সাগর আহমেদ, শিশুশিল্পী সানজিদা রাইসা, শিমুল খান ছাড়াও আরও অনেকে। ১৬ ডিসেম্বর ছবিটি ঢাকাসহ মোট ১৫টি সিনেমা হলে মুক্তি দেয়া হবে বলে নির্মাতা সূত্রে জানা গেছে।

ডিসেম্বরের একেবারে শেষের দিন মুক্তি পাচ্ছে সাইবার ক্রাইমের ঘটনা নিয়ে নির্মিত ছবি ‘মুখোশ মানুষ : দ্য ফেইক’। ইয়াসীর আরাফাত জুয়েল পরিচালিত ছবিটিতে অভিনয় করেছেন আদনান ফারুক হিল্লোল, নওশীন নাহরীন, কল্যাণ কোরাইয়া, লামিয়া মিমো, প্রসূন আজাদ, রাইজা রশিদ, বড়দা মিঠু প্রমুখ।

বাণিজ্যিক ছবি ছাড়াও মুক্তির তালিকায় রয়েছে একটি মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গল্পের ছবিও। সেটির নাম হচ্ছে ‘লাল সবুজের সুর’। ছবিটি শিশুসাহিত্যিক ফরিদুর রেজা সাগরের লেখা মুক্তিযুদ্ধের কাহিনী নিয়ে নির্মিত হয়েছে। এতে অভিনয় করেছেন প্রয়াত অভিনেত্রী পারভীন সুলতানা দিতি, ওমর সানী, রেসি, আল-মামুন, শহীদুল আলম সাচ্চু, রাফি, এস আই ফারুক প্রমুখ।

এটি পরিচালনা করেছেন মুশফিকুর রহমান গুলজার। ছবিটি ১৬ ডিসেম্বর মুক্তির তারিখ ঘোষণা করলেও এখনও কোনো ধরনের প্রচারণায় নেই। তাই ছবিটির মুক্তি নিয়ে বেশ সংশয় রয়েছে এখনও। যদি এ ছবিটি মুক্তি পায় তাহলে হয়তো বিজয়ের মাসে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গল্পের নতুন ছবি নেই- এ কথাটি ভুল প্রমাণিত হবে। দর্শকরাও চাইছেন কথাটি ভুল প্রমাণিত হোক। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s