সব মেয়েরা আমাকে ঘৃণা করতে শুরু করেছে

‘বেফিকরে’ ছবির নায়িকা। অনস্ক্রিনে চুমু খেতে পারদর্শী।

বিকিনি বডি বানিয়ে তাক লাগিয়েছেন বাণী কাপুর। ২০ টাকা দিয়ে কাটা লটারির টিকিটে যদি এক কোটি ফেরত পাওয়া যায়? হয় আপনি আনন্দে পাগল হয়ে যাবেন। আর না হলে ভীষণ ভয় করতে শুরু করবে!

বলিউডের এক নায়িকার অবস্থা এখন সেরকমই। মনের মধ্যে তুমুল আনন্দ। আর তার সঙ্গে প্রচণ্ড ভয়! বাণী কাপুর। দিল্লির মেয়ে। মুম্বই শহরে এসে ‘যশরাজ ফিল্মস’ এর ‘শুধ দেশি রোমান্স’ ছবিতে প্রথম কাজ করেন। তবে ২০১৩ সালে সেই ছবি যখন করেন এই নায়িকা, তখন প্রচারের আলো প্রায় পুরোটা কেড়ে নিয়েছিলেন পরিণীতি চোপড়া। বাণী কাপুর নজর কাড়লেও, তাকে নিয়ে চর্চা ততটা হয়নি।

এরপর কিছুটা বিরতি। তারপর হঠাৎ করে ‘বেফিকরে’র নায়িকা তিনি। এত বাণী কাপুরের জন্য লটারি জেতার মতোই। কারণগুলো হলো ১. এই ছবির পরিচালক আদিত্য চোপড়া স্বয়ং। যার হাতে লাভস্টোরি মানেই ইতিহাস সৃষ্টি। ২. ছবিতে তার নায়ক রণবীর সিং। নতুন প্রজন্মের নায়কদের মধ্যে অধিকাংশের মতেই, তিনি এখন শীর্ষে। ৩. ছবির ট্রেলার থেকে গানে, রণবীরের অকারণ আধিক্য নেই। বরং ‘নশে শি চড় গয়ি’র মতো গানে, বাণীর ডান্স পারফর্মেন্সের ওপরই পড়েছে স্পটলাইট!

ফোনের ওপারে বাণীকে জিজ্ঞেস করা গেল, কতটা আনন্দ হচ্ছে তার? প্রশ্নটা করতেই কোনোরকম রাখঢাক ছাড়া বলে উঠলেন, আপনি আনন্দের কথা জিজ্ঞেস করছেন, আনন্দ তো হচ্ছেই। কিন্তু বিশ্বাস করুন, আমি সাংঘাতিক ঘাবড়ে আছি। এর আগে এত বড় ছবিতে এ রকম চরিত্র করার সুযোগ আসেনি। তাই আমার এখন ভয় করছে, মনে হচ্ছে, কোনোভাবে সবকিছু ভালোয়-ভালোয় উতরে যাক।

‘বেফিকরে’ ছবিতে বাণী এমন একজন মেয়ের চরিত্রে, যে বন্য, স্বাধীনচেতা, ফ্রান্সে বড় হয়ে ওঠা। ‘নশে শি চড় গয়ি’ গানে বাণী যে ডান্স স্টেপস করেছেন, যা নায়িকাকে করতে হয়েছে চরিত্রের প্রয়োজনে, সেই নাচ দেখে হৃতিক রোশনও সম্প্রতি তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন। কতটা কঠিন ছিল রিহার্সাল? বাণী বলছেন, কঠিন তো ছিলই। প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা করে রিহার্সাল করতে হতো, শুটিংয়ের আগে। ছবিতে অত্যন্ত সাহসী পোশাকে দেখা যাবে নায়িকাকে। এমনকী বিকিনিতে বাণীর ছবি ইদানীং সোশাল মিডিয়ায় বেশ ‘লাইক’ পাচ্ছে। সেই পোশাকে যাতে অশ্লীল না লাগে, তার জন্য কী করতেন? বাণী বলছেন, নিয়মিত এক্সারসাইজ তো করতামই। তার সঙ্গে এমন ডায়েট চার্ট মেনে খাবার খেতাম, যাতে বড়পর্দায় চেহারাটা ঠিক দেখায়। আসলে আমি খেতে ভালোবাসি। তাই আমার জন্য কাজটা কঠিন ছিল। এই যে আমি আপনার সঙ্গে কথা বলছি, ভেলপুরি আর চিপস খাচ্ছি। ভাবুন, কীরকম অদ্ভুত কম্বিনশেন। আর কী খাওয়ার জন্য জিভে জল এসে যায় বাণী কাপুরের? বাণী বলছেন, সুসি। পাস্তা। বাটার চিকেন। আমি আসলে প্রচণ্ড পেটুক। মাখন দেওয়া মুরগি খেয়ে আপনি এ রকম মাখনের মতো ফিগার রাখেন? এটা বিশ্বাস করতে হবে? প্রশ্ন শুনে প্রচণ্ড হেসে নায়িকা বলছেন, আরে সত্যি। যখন শুটিং করি না, তখন এসব খেয়ে আমি মোটা হয়ে যাই!

আপনি এতটা ফুডি বলেই কী এতগুলো চুমু খেলেন ছবিতে? বাণী বলছেন, ‘‘বেফিকরে’ ছবিতে চুমু খাওয়ার বিষয়টা কীরকম জানেন তো? ‘হাগ’ করার মতো। আজকাল কেউ যখন কাউকে জড়িয়ে ধরে, আপনি খেয়াল করে দেখবেন, বাকিরা সেটা নিয়ে মাথা ঘামায় না। এ ছবিতে চুমু খাওয়াও ঠিক ওরকম একটা এক্সপ্রেশন। এটা ভালোবাসার প্রকাশ। এর মধ্যে কোনও উগ্র ব্যাপার নেই। ’ প্রসঙ্গত ‘বেফিকরে’ ছবিতে রণবীর-বাণীর চুমু এখনই চর্চার বিষয়। ঠিক ক’টা চুমু রয়েছে আর সেগুলো কতটা উপভোগ্য, তা অবশ্য বোঝা যাবে, আগামী শুক্রবার, যখন মুক্তি পাবে ‘বেফিকরে’।

‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’, ‘মহব্বতেঁ’, ‘রব নে বানা দি জোড়ি’ আর ‘বেফিকরে’, আজ পর্যন্ত শুধুমাত্র চারটে ছবি পরিচালনা করেছেন আদিত্য চোপড়া। অর্থাত্‍ নায়িকাদের মধ্যে তিনি কাজ করেছেন কাজল, ঐশ্বর্য রাই বচ্চন আর অনুষ্কা শর্মার সঙ্গে। আর তারপরই বাণী কাপুর…কথা কেড়ে নিয়ে বাণী বলছেন, এবার আপনি আমায় আরও নার্ভাস করে দেবেন! দেখুন আদির পরিচালনায় এই কাজ করা, আমার জীবনে মনে রাখার মতো ঘটনা। কিন্ত্ত একইসঙ্গে এটা বলব, শ্যুটিংয়ের সময়, আমার কিন্তু ভয় করত না। আদি জানে, কীভাবে একজন অভিনেতাকে শ্যুটিং ফ্লোরে আরামদায়ক পরিবেশ দিতে হয়, যাতে সে তার সেরা কাজটা করতে পারে। আর শুটিংয়ের ফাঁকে? রণবীর সিং নাকি আপনার সাংঘাতিক পিছনে লাগতেন? ওরে বাবা! রণবীরের ‘বুলিং’ থেকে আমায় কেউ বাঁচাতে পারেনি। সারাক্ষণ আমার পিছনে লেগে, আমায় পাগল করে দিত। ’ রণবীর সম্পর্কে নায়িকা আরও যোগ করছেন, রণবীরের সঙ্গে কাজ করে বুঝলাম, এই মুহূর্তে সাফল্য যে ওকে ঘিরে আছে, তার সবটুকু ও ডিসার্ভ করে। আর আমাদের আগে থেকেই চেনাপরিচিতি ছিল। আদি, রণবীর সকলের সঙ্গে পার্টি করেছি বহুবার।

রণবীর সিং কে একবার ছুঁয়ে দেখার জন্য এই মুহূর্তে দেশের অনেক সুন্দরীরাই অপেক্ষা করছেন। আর আপনি সেই রণবীরকে এতগুলো চুমু খেলেন। কেমন লাগল বলুন তো? বাণী বলছেন, রণবীরকে এতগুলো চুমু খাওয়ার জন্য, দেশের মেয়েরা যে আমায় ঘেন্না করতে শুরু করেছে, সেটা আমিও বুঝতে পারছি!

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s