Tag Archives: bollywood news

প্রচ্ছদে শহিদ -মীরা জুটি, ইন্টারনেটে ভাইরাল

শহিদ কাপুর ও মীরা রাজপুত। দাম্পত্য জীবনে মধুর এলিমেন্ট এঁদের প্রচুর।

প্রেমের অনেক রঙিন ফ্রেম এঁরা উপহার দিয়েছেন।

হাঁটুর বয়সী মীরাকে ২০১৫ সালে বিয়ে করেন শহিদ কাপুর। কারিনা-প্রিয়াঙ্কা বিভিন্ন ঘাটের পানি খেয়ে শহিদ শেষ পর্যন্ত সম্বন্ধ করে বিয়েতে সম্মত হন। তাও আবার ১৩ বছরের ছোট মেয়েকে বিয়ে করেন শহিদ। উচ্চবিত্ত পরিবারের মেয়ে হলেও বলিউডি ঘরানার সঙ্গে খুব বেশি যোগ ছিল না তাঁর। কিন্তু ধীরে ধীরে দু’ বছর পেরিয়ে তিনিও আজ গ্ল্যামার জগতের বাসিন্দা।

সুন্দরী মীরা তাই এখন জনপ্রিয় ম্যাগজিনের কাভার পেজে আসার যোগ্যতাও অর্জন করে নিয়েছেন। প্রথম কভার পেজ অ্যাপিয়ারেন্সে তাঁর সঙ্গী তাঁর হাবি শহিদ কাপুর। প্রথম সব কিছুর আনন্দই আলাদা।

আর তাই আবেগে ভেসে শহিদের বউ নিজেদের ম্যাগাজিনের কাভার পেজের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়ে দিয়েছেন।

Advertisements

জানুয়ারিতে কপিল শর্মার বিয়ে

আগামী বছরের জানুয়ারিতে প্রেমিকা গিনি চাতরাথের সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হতে যাচ্ছেন কপিল শর্মা। কপিলের একটি ঘনিষ্ঠসূত্র সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘দুই পরিবারের পক্ষ থেকে অনেক চাপ দেওয়া হচ্ছে।

গিনির পরিবার চাইছেন এ জুটির সম্পর্কটির আনুষ্ঠানিক পরিণতি হোক। কপিলের মা বিয়ে করার জন্য তাকে জোর করছেন, কারণ গিনিকে তিনি অনেক পছন্দ করেন এবং তার সঙ্গে সম্পর্কটাও বেশ ভালো।

গিনি প্রতিজ্ঞা করেছিলেন, কপিল নিজেকে শুধরে নেওয়ার পরই তাকে বিয়ে করবেন। এখন মদ, নেশা থেকে দূরে রয়েছেন কপিল। তার মনের অবস্থাও ভালো। তাই এখন কপিল বিয়ে করার জন্য মনস্থির করেছেন।

২০১৪ সালে ভারতীয় একটি হিন্দি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কপিলের ভাই অশোক শর্মা জানান, কপিল জলন্ধর-নিবাসী ভবনীত চাতার্থকে বিয়ে করতে চায়। দু’জনে এক সঙ্গে কমেডি শো ‘হাস বলিয়ে’-তে অংশগ্রহণ করেছিল। তাদের বলিউড ফিল্ম ‘ব্যাংক চোর’ রিলিজ করার পরে বিয়ে করবে বলে স্থির করেছে।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই বিয়ে আর হল না কেন? ২০১৫ সালে যখন যশরাজ ফিল্মসের ছবি ‘ব্যাংক চোর’-এ কাজ করার সুযোগ কপিলের হাতছাড়া হল, তখনও শোনা যাচ্ছিল কপিল আর ভবনীতের বিয়ের খবর একেবারে পাক্কা। তারপর ‘কিস কিস কো পেয়ার করু’ ছবির কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন কপিল। সেই সময় থেকেই আস্তে আস্তে কপিল-ভবনীতের প্রেম নিয়ে চর্চা কমে আসতে শুরু করে। একটা সময়ে ভবনীত কপিলের জীবন থেকে একেবারেই উধাও হয়ে যান।

‘ফিরাঙ্গি’ ছবির প্রচারণা নিয়ে ব্যস্ত কপিল শর্মা। এটি তার অভিনীত দ্বিতীয় ছবি। আগামী ২৪ নভেম্বর মুক্তি পাবে ছবিটি।

নেটদুনিয়ায় জনপ্রিয় হওয়ায় মারাত্মক বিপদেও পড়েছিলেন সানি লিওন?

যেকোনো ছবি প্রমোশনের ক্ষেত্রে সোশাল মিডিয়া এখন গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হয়ে উঠেছে। প্রায় সমস্ত অভিনেতা, অভিনেত্রীরাই এদিকে আলাদা করে গুরুত্ব দিয়েছেন।

তবে তার মধ্যে মুষ্টিমেয় কয়েকজনই নেটদুনিয়ার নজর নিজের দিকে ঘুরিয়ে নিতে পারেন। তাঁদের মধ্যে অন্যতম সানি লিওন। তবে নেটদুনিয়ায় জনপ্রিয় হওয়ার কারণে মারাত্মক বিপদেও পড়েছিলেন সানি।

এমনকি ছবি পোস্ট করে হেনস্তার শিকার হওয়া তো নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে অভিনেত্রীদের কাছে। প্রাক্তন পর্নস্টার হওয়ার দৌলতে সানিকেও দেদার কটাক্ষ সহ্য করতে হয়েছে। নেটদুনিয়া ছাড়া বাস্তবেও ব্যঙ্গের মুখে পড়তে হয়েছে তাঁকে। তবে তার থেকেও মারাত্মক অভিজ্ঞতা হয়েছে তাঁর। নেটদুনিয়ায় এক ব্যক্তি তাঁকে রীতিমতো হুমকি দিত।  সানির বেশ কয়েকজন ভক্তকে নিয়ে এই কাণ্ড চালাতেন ওই ব্যক্তি।

প্রথমদিকে গুরুত্ব দেননি অভিনেত্রী। কিন্তু একদিন বিপদ ঘনায়। ওই ব্যক্তি পৌঁছে যান তাঁর বাড়ির সামনে। ঘরের ভিতর থেকেই ওই ব্যক্তির হই-হল্লাও শুনতে পান সানি। সে সময় তাঁর স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। ড্যানিয়েল দেশের বাইরে ছিলেন বলে একাই থাকতেন সানি। এ রকম সময় শুরু হয় উপদ্রব। সেই সময়টা রীতিমতো ভয়ে ভয়ে থাকতেন সানি।

জানা গেছে, একদিন তো চেঁচামেচি শুনে এতটাই ভীত হয়ে পড়েছিলেন যে হাতে ছুরি নিয়ে দরজার দিকে এগিয়ে গিয়েছিলেন। এর পরই নিজের বাড়ির সামনে সিসিটিভি ইনস্টলের সিদ্ধান্ত নেন সানি। এখনও সে ঘটনার কথা মনে পড়লে শিরদাঁড়া দিয়ে ঠাণ্ডা স্রোত বয়ে যায় সানির।

পরে এ ব্যাপারে সানি লিওন জানিয়েছেন, সাইবার দুনিয়ার এটি একটি সমস্যা। পেশার খাতিরে অনেককেই এ দুনিয়ায় সক্রিয় থাকতে হয়। কিন্তু তার জন্য কম ভোগান্তি পোহাতে হয় না।

তবে সময় এমন যে নেটদুনিয়া থেকে দূরে থাকাও সম্ভব নয়। আপাতত ‘তেরি ইনতেজার’ ছবিতে তাঁকে দেখার অপেক্ষায় প্রহর গুনছে ভক্তরা।

প্রভাসের পারিশ্রমিক শুনে ঘুম হারাম করনের

‘বাহুবলী’ এবং ‘বাহুবলী দ্য কনক্লুশন’ সিনেমায় দারুণ অভিনয় দিয়ে সবাইকে মুগ্ধ করেছেন দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা প্রভাস।
তার জনপ্রিয়তা একেবারে তুঙ্গে। ‘বাহুবলী’ সিক্যুয়ালের পর বলিউডের তাবড় পরিচালকদের অনেকেই এখন প্রভাসকে নিয়েই কাজ করতে চাইছেন।
তার মধ্যে অন্যতম হলেন করন জহর। তবে প্রবল ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও প্রভাসকে নিয়ে কাজ করতে পারছেন না করন জোহর!
সম্প্রতি বলিউডে এমনই গুঞ্জন শুরু হয়েছে।
ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, প্রভাস যে পরিমাণ পারিশ্রমিক দাবি করছেন তা শুনেই ঘুম হারাম হয়ে গেছে করনের। করন জহরের হাত ধরে বলিউডে ডেবিউ করার জন্য প্রভাস নাকি ২০ কোটি পারিশ্রমিক চাইছেন।
কিন্তু, প্রভাসকে ওই টাকা পারিশ্রমিক দিতে নারাজ করন। আর সেই কারণেই নাকি করনের হাত ধরে প্রভাসের বলিউড ডেবিউ পিছিয়ে যাচ্ছে।
প্রসঙ্গত, ‘বাহুবলী’ সিরিজের সঙ্গে চুক্তি থাকায় দীর্ঘদিন অন্য কোনো সিনেমায় দেখা যায়নি প্রভাসকে। তবে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর নতুন সিনেমার কাজে হাত দিয়েছেন তিনি।
প্রভাস বর্তমানে ‘সাহো’ সিনেমার শুটিংয়ে ব্যস্ত। সিনেমায় একেবারে ভিন্নলুকে হাজির হবেন প্রভাস। সিনেমায় তার বিপরীতে দেখা যাবে আশিকিখ্যাত নায়িকা শ্রদ্ধা কাপুরকে।

সালমান-শাহরুখের সাথে প্রথম পরিচয়ের কাহিনী বললেন আমির

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে সালমান ও শাহরুখের সঙ্গে প্রথম পরিচয়ের মজার অভিজ্ঞতার কথা বললেন বলিউড অভিনেতা আমির খান। সম্প্রতি গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানালেন, অপর দুই খান- শাহরুখ ও সালমানর সঙ্গে তার প্রথম পরিচয়ের গল্প।

মিড ডে’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আমির বলেন, আমি যখন সালমান খানকে প্রথম দেখি তখন আমরা কেউই তারকা হয়ে উঠিনি। পরিচালক আদিত্য ভট্টাচার্যের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমায় অভিনয়ের সুবাদে তার বাড়িতে গিয়েছিলাম। পাশেই একটি লনে সাইকেল চালাচ্ছিলেন সালমান। তার সঙ্গে সেখানেই আমার প্রথম পরিচয়। আলাপের সূত্রেই জানতে পারি ছোটবেলায় সালমান আর আমি একই স্কুলে, একই ক্লাসে এক বছর পড়েছিলাম। সম্ভবত সেটা ছিলো গ্রেড-টু। কিন্তু আমরা তখন কেউ কাউকে চিনতাম না।

সাক্ষাৎকারে আমির বলেন, শাহরুখের সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় হয় ১৯৯২ সালে। তখন শাহরুখ সবেমাত্র জুহি চাওলার সঙ্গে ‘রাজু বান গয়া জেন্টলম্যান’ সিনেমার শুটিং শুরু করেছে।

সে সময় আমি আর জুহিও নতুন একটি সিনেমার শুটিং করছিলাম। শুটিং সেটেই তার সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় হয়। তখন শাহরুখের বলিউড অভিষেক সিনেমা ‘দিওয়ানা’ মুক্তি পায়নি এবং বলিউড অভিনেতা হিসেবে তাকে কেউ চিনতো না। প্রথম পরিচয়ে তাকে (শাহুরখ খানকে) আমার বেশ মিশুকে ও হৃদয়বান বলে মনে হয়েছিলো।

মালায়লাম সিনেমার রিমেক হবে ‘সিংঘাম থ্রি’

রোহিত শেট্টি ও অজয় দেবগন বলিউডের বলিষ্ঠ জুটি। ‘সিংঘাম’ ও ‘গোলমাল’ সিনেমা দিয়ে বলিউডে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই জুটি।
২০১১ সাল থেকে ২০১৪ সাল এই তিন বছরে ‘সিংঘাম’র দুইটি সিনেমা মুক্তি পেয়েছে। ২০১১ সালে ‘সিংঘাম’ এবং ২০১৪ সালে ‘সিংঘাম রিটার্নস’ সুপার হিট হয়। সিনেমায় সাহসী এক পুলিশ অফিসারের চরিত্রে অভিনয় করেছেন অজয়।
এই দুই সিনেমার ব্যাপক জনপ্রিয়তার পর ‘সিংঘাম থ্রি’ বানানোর পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন রোহিত শেট্টি। খবর ডেকান ক্রনিকলের।
খবরে বলা হয়, মালায়লাম সিনেমা ‘অ্যাকশন হিরো বিজু’র রিমেক হবে ‘সিংঘাম থ্রি’।  ‘অ্যাকশন হিরো বিজু’ সিনেমায় অভিনয় করেন নিভিন পাওলি।
ট্রেড এনালিস্ট রমেশ বালা এক টুইট বার্তায় জানান, সম্ভবত ‘সিংঘাম থ্রি’ মালায়লাম সিনেমা ‘অ্যাকশন হিরো বিজু’র রিমেক হবে।
এ বিষয়ে রোহিত শেট্টি বলেন, দর্শকের চাহিদার বিষয়টি মাথায় রেখে আমি সিনেমা নির্মাণ করি। সিংঘাম ও গোলমাল তারই ফল। সিংঘাম এবং সিংঘাম রিটার্নস এর ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণেই সিংঘাম থ্রি তৈরির চিন্তা নিয়েছি। যতদিন পর্যন্ত সিংঘাম এবং গোলমালের দর্শক চাহিদা থাকবে ততদিন এই সিরিজগুলো চলতেই থাকবে। দর্শক যখন চাইবে না তখন আর এই সিরিজ বানাবো না।
তিনি বলেন, সিংঘাম একটি বড় ব্রান্ড। এটি আমাদের যথেষ্ট সম্মান দিয়েছে। আমরা এর আরও সিক্যুয়াল বানাতে চাই।
প্রসঙ্গত, রোহিত-অজয় বর্তমানে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই আছেন। গত দিওয়ালিতে মুক্তি পেয়েছে গোলমাল সিরিজের সিনেমা ‘গোলমাল এগেইন’। এক সপ্তাহে বক্স অফিসে ১৫০ কোটি রুপি আয় করেছে।
বলিউডের মি. পারফেকশনিস্ট আমির খানকে টেক্কা দিয়েছেন অজয়। আমিরের ‘সিক্রেট সুপারস্টার’ এবং অজয়ের ‘গোলমাল এগেইন’ একই সময়ে মুক্তি পায়। তবে বক্স অফিসের যুদ্ধ আমিরকে হারিয়ে দিয়েছেন অজয়।

শাহরুখ-গৌরীর প্রেমের শুরুটা যেমন ছিল

সালটা ১৯৮৪। এক অনুষ্ঠানে প্রথম দেখা শাহরুখ আর গৌরীর।

এক বন্ধুর মাধ্যমে গৌরীর কাছে প্রস্তাব পাঠালেন শাহরুখ, তোমার সঙ্গে একটু নাচব!” অভিনেতা অনুপম খের সঞ্চালিত একটি অনুষ্ঠানে শাহরুখ জানিয়েছিলেন, গৌরী প্রথম নারী, যার সঙ্গে আমি নাচের প্রস্তাব দিয়েছিলাম, ফোন নম্বর চেয়েছিলাম। হতাশ করেছিলেন গৌরী। শাহরুখের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন।

শাহরুখের সঙ্গে মিশতেও চাননি। তাই সেদিন বানিয়ে বানিয়ে বলেছিলেন, তিনি তাঁর প্রেমিকের জন্য অপেক্ষা করছেন। কিন্তু পরে জানা যায়, গৌরীর অপেক্ষাটি ভাইয়ের জন্য। জানতে পেরে শাহরুখ নাকি গৌরীকে জানান, তিনিও তাঁর ভাই হতে চান। এতে কাজ হয়। এগিয়ে আসেন গৌরী।

শুরু হয় দুজনের প্রেম। এভাবে কেটে যায় পাঁচটি বছর। একটু বেশিই ভালোবাসতেন শাহরুখ। এটা করা যাবে না, ওখানে যাওয়া যাবে না, ওর সঙ্গে কিসের এত কথা এরকম চোখরাঙানি চলত নিয়মিত। একদিন রেগে যান গৌরী। কোনও কিছু না বলে বন্ধুদের সঙ্গে মুম্বাই চলে যান। উপায় না দেখে শেষমেশ গৌরীর মাকে সব খুলে বলেন। প্রথমে একটু রেগে গেলেও একটা সময় মন গলে। শাহরুখের হাতে কিছু টাকা দিয়ে বলেন, খুঁজে নিয়ে আসতে গৌরীকে।

এত বড় শহরে গৌরীকে খুঁজে বেড়ানো সহজ ছিল না। হঠাৎ মাথায় এল, গৌরী সমুদ্র ভালোবাসে। সমুদ্রের পাড়ে কোথাও পাওয়া যায় কি না। যেই ভাবনা, সেই কাজ। এক বিকেলে সমুদ্রসৈকতে হাঁটতে হাঁটতে পাওয়া গেল গৌরীকে। গৌরীকে দেখে শাহরুখের কান্নায় মন গলে গৌরীর।

তবে মুসলমান শাহরুখের সঙ্গে বিয়ে হওয়া সহজ ছিল না ব্রাহ্মণ পরিবারের কন্যা গৌরীর। শোনা যায়, গৌরীর বাবা-মার মন জয় করতে হিন্দু নাম ব্যবহার করতেন শাহরুখ। ততদিনে শাহরুখের বলিউডে কাজ শুরু হয়ে গেছে। ১৯৯১ সালের অক্টোবরে বিয়ে করেন তাঁরা।

হিন্দি ছবি ‘লিঙ্গ বৈষম্য ও যৌনতা নির্ভর’ ৪ হাজার ছবির গবেষণার ফল

বলিউড চলচ্চিত্র যৌনতা নির্ভর- এমন অভিযোগের সঙ্গে এবার যুক্ত হয়েছে এর লিঙ্গ বৈষম্যমূলক বৈশিষ্ট্যও। অন্তত একটি গবেষণার তথ্যে বলা যায় এ কথা প্রমাণিত হয়ে যাচ্ছে।

আইবিএমের করা ৪ হাজার হিন্দি চলচ্চিত্রের ওপর গবেষণা এবং দিল্লি ভিত্তিক দুটি প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে।

গবেষণায় উল্লেখ করা হয়- বিভিন্নভাবে যৌনতা আর লিঙ্গ বৈষম্য প্রদর্শিত হয়, যেমন বিভিন্ন পেশা, পাঠ্যক্রমে জড়িত কর্ম, ছবির বর্ণনা, চরিত্রের বৈশিষ্ট্যেও লিঙ্গ বৈষম্য ফুটে ওঠে। এভাবেই বিভিন্ন রসদে হিন্দি ছবির ভেতর যৌনতার সন্ধান মেলে। গবেষণায় কঙ্গনা রানাউতের একটি গানের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। যেটা এই গবেষণাকেই সমর্থন করছে।

১৯৭০ সাল থেকে ২০১৭ পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া ৪ হাজার হিন্দি ছবির ওপর গবেষণা চালানো হয়। উইকিপিডিয়ার আইবিএম ডাটাসেটের গবেষণায় প্রতিটি চলচ্চিত্রের খুঁটিনাটি বিষয় যেমন- ছবির টাইটেল, কুশীলবদের তথ্য, সাউন্ডট্র্যাক ও পোস্টারের ওপর গবেষণা ছাড়াও ২০০৮ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত মুক্তিপ্রাপ্ত ছবির ট্রেলারও বিশ্লেষণ করে দেখেছেন গবেষকেরা।

চলচ্চিত্রে যদিও নারী চরিত্রগুলো ছোট হয়, তবুও দর্শকদের আকৃষ্ট করার জন্য চলচ্চিত্র নির্মাতারা তাদের অভিনব ভাবে উপস্থাপন করেন। এমনটাই দাবি গবেষকদের।

যৌনতা প্রদর্শনের পাশপাশি লিঙ্গ বৈষম্যের বিষয়টি প্রচ্ছন্নভাবে চলে আসছে- এমনটাই দাবি গবেষকদের।

গবেষকরা বাণিজ্যিক হিন্দি চলচ্চিত্রের বিষয়টিও উল্লেখ করেছেন। তারা বলছেন,  কখনো নারী চরিত্রকে ‘আদর্শ নারী’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে- যারা বিনয়ী, আত্ম-উৎসর্গীকৃত, পবিত্র এবং নিয়ন্ত্রিত। একইসাথে ‘খারাপ নারী’ যৌন আক্রমনাত্মক, আত্মত্যাগী নয় ও পশ্চিমা দুনিয়ার সংস্কৃতিতে অভ্যস্ত এমন চরিত্রেও দেখানো হচ্ছে মেয়েদের।

আইবিএম এর নিশথা মাদান বলেন, অভিনেত্রীদের নিইয়ে প্রচারকার্য বেশি চালানো হয়, কিন্তু যখন প্রকৃত গল্প আসে তখন দেখা যায় আসলে অভিনেত্রীরা থাকেন সাইডলাইনে।

তবে কিছু ক্ষেত্রে নারীদের চরিত্রায়ণে উন্নতিরও দেখা মেলে। ১৯৭০ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত এই সময়ের মধ্যে বলিউডে বেশকিছু নারীকেন্দ্রিক চলচ্চিত্রও নির্মিত হয়েছে। মেয়েদেরকে চরিত্র নিয়ে লেখা কাহিনি প্রধান চরিত্রের রুপ পেয়েছে। সত্তরের দশকে যা ৭ ভাগ ছিল এই সময়ে এসে তা ১১.৯ শতাংশে পৌঁছেছে।

ডিসেম্বরেই বিয়ে করছেন পাওলিও দাম

বছরের শেষ দিকে এসে বোধহয় তারকাদের বিয়ের ধুম পড়ে গেলে। গতকালই খবর বেরিয়েছে, ডিসেম্বরে বিয়ে করছেন এই সময়ের সবচেয়ে বড় তারকা জুটি বিরাট  কোহলি ও আনুশকা শর্মা।

সেই খবরের রেশ না কাটতেই নয়া বিয়ের খবর। এবারের সুখবরটা শোনালেন কলকাতার হট সেনসেশন অভিনেত্রী পাওলি দাম। এক ধাপ এগিয়ে তিনি আবার বিয়ের দিনক্ষণও ঠিক করে ফেলেছেন। ভারতীয় মিডিয়ার খবর বলছে, আগামী ৪ ডিসেম্বর সোমবার বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন পাওলি। পাত্র ব্যবসায়ী অর্জুন দেব। কলকাতার তাজ বেঙ্গলে হবে বিয়ের অনুষ্ঠান। যেহেতু পাত্রপক্ষের নিবাস গুয়াহাটি, তাই সেখানে ১০ ডিসেম্বর বিয়ের রিসেপশন দেয়া হবে।

পাওলি যে বিয়ে করতে চলেছেন তার গুঞ্জন অনেক দিন ধরেই চলছিল। তবে নায়িকা নিজের মুখে কোনও কিছুই স্বীকার করতে চাইছিলেন না।

এখনও পাওলি এ ব্যাপারে কিছু বলতে নারাজ। বিয়ে তাঁর কাছে ভীষণ ব্যক্তিগত একটি সিদ্ধান্ত। তাই গোটা বিষয়টা ব্যক্তিগত পর্যায়েই রাখতে চান। কিন্তু খবর তো ছড়াতেই থাকে। প্রথমে বিয়ের গোটা অনুষ্ঠানই গুয়াহাটিতে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পরে সিদ্ধান্ত হয়, বিয়ে হবে কলকাতায় মেয়ের বাড়িতে। ৬ তারিখে পরিবারসহ গুয়াহাটি যাবেন পাওলি-অর্জুন। বিয়েতে ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁর ঘনিষ্ঠ সকলকেই আমন্ত্রণ জানাবেন পাওলি। ইতিমধ্যে অনেকের কাছে সেভ দ্য ডেট মেসেজ পৌঁছেও গিয়েছে। অর্জুনের ব্যবসায়ী পরিবৃত্তটিও কম বড় নয়। অতিথি তালিকায় রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। পাওলির এক ঘনিষ্ঠজন জানিয়েছেন,  নিজে গিয়েই দিদি মমতাকে আমন্ত্রণ জানাবেন নায়িকা।

ইতালীয় কনসাল জেনারেলের এক পার্টিতে আলাপ হয় পাওলি আর অর্জুনের। তার পরেও একাধিক অনুষ্ঠানে দুজনের দেখা হয়। প্রেম পর্বের সেই শুরু। প্রেমের বিষয়টিও পাওলি গোপন রাখতে চেয়েছিলেন। কিন্তু এ সব তো চাপা থাকে না। হবু বরকে তিনি অবশ্য জোজো বলে ডাকেন। তবে বিয়ে করলেও কখনো অভিনয় ছাড়ছেন না নায়িকা। পাওলি এর আগে বহুবারই বলেছেন, বিয়ে করলেও অভিনয় চালিয়ে যাবেন। অর্জুনেরও এ ব্যাপারে নাকি পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। তবে বিয়ের জন্য তিনি জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি নিয়েছেন বলে খবর। ফেব্রুয়ারি থেকে ফের কাজ শুরু করবেন। তাঁর আগামী ছবির শিডিউল অন্তত তেমন কথাই বলছে।

‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’! পোস্টারে জানান দিলেন সালমান-ক্যাটরিনা

বুধবার মুক্তি পেয়েছে সালমান খান-ক্যাটরিনা কাইফের ছবি ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’-এর প্রথম পোস্টার। গ্রিস, আবু ধাবি, অস্ট্রিয়ার মতো জায়গায় শুটিং দৃশ্যের বিভিন্ন ছবি শেয়ারের পর প্রকাশ্যে এসেছে পোস্টার।

 

একেবারে মারমুখী মুর্তিতে পোস্টারে ধরা দিয়েছেন সালমান-ক্যাট। দু’জনেই ‘ওয়ারজোন’-এ দাঁড়িয়ে বন্দুক চালাচ্ছেন। ব্যাকগ্রাউন্ডে দেখা যাচ্ছে বিস্ফোরণ ও হেলিকপ্টার ভেঙের পড়ার দৃশ্য। বলিউডের ‘ভাইজান’ নিজেই টুইটারে শেয়ার করেছেন ছবির পোস্টারটি।

কয়েকদিন আগে একটি সাক্ষাৎকারে সালমান বলেছিলেন, ‘এক থা টাইগার’-এর তুলনায় অনেকটাই বড় মাপের ছবি হতে চলেছে টাইগার জিন্দা হ্যায়। এটি ‘এক থা টাইগার’-এর সিক্যুয়েল। ভারতীয় সিনেমায় এরকম ছবি আগে হয়নি। একটি সত্য ঘটনা থেকেই এই ছবির প্লট তৈরি। সল্লু ভাইয়ের ছবি মানেই ‘লার্জার দ্যান লাইফ’।

কবীর খান পরিচালিত এই ছবি মুক্তি পাওয়ার কথা চলতি বছর ২২ ডিসেম্বর।

শহিদ-কারিনাকে চাননি পরিচালক

২০০৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘জব উই মেট’ ছবির কথা মনে আছে তো। যে ছবিতে সাবেক প্রেমিক-প্রেমিকা জুটি শহিদ কাপুর ও কারিনা কাপুর বলিউডি ছবির ইতিহাসে নতুন একটি অধ্যায় রচনা করেছিলেন। ‘রোম্যান্টিক কমেডি’ জঁরের ‘জব উই মেট’বুধবার ১০ বছর পূর্ণ করেছে। ১০ বছর পরে এসেও ছবিটি সম্পর্কে এমন কিছু বলব যা আপনার জানা নাও থাকতে পারে।

‘জব উই মেট’ পরিচালনা করেছিলেন বলিউডের নামি চলচ্চিত্র নির্মাতা ইমতিয়াজ আলি। এটি ছিল পরিচালকের দ্বিতীয় ছবি। কিন্তু ছবিতে অভিনয় করে যে জুটি মাত করেছিলেন সেই শহিদ-কারিনাকে পছন্দ ছিল না ইমতিয়াজ আলির।
bobi-300x171

শহিদ কাপুরের জায়গায় ইমতিয়াজ আলির প্রথম পছন্দ ছিল ওই সময়ের হার্টথ্রব ববি দেওলকে। কিন্তু ববি সেই চরিত্রে অভিনয় করতে রাজি হননি, না কি তিনি বাদ গেলেন। কারণই বা কী। এ নিয়ে কখনও মুখ খোলেননি নায়ক বা পরিচালক কেউই।

পরে শহিদ কাপুরকে এই ছবির জন্য অফার দেন ইমতিয়াজ আলি। তার ভালো ফলও তিনি পেয়েছিলেন। ‘আদিত্য’ চরিত্রে শহিদের অভিনয় আজও গেঁথে আছে দর্শক হৃদয়ে। অভিনয় আর নাচে-গানে একেবারে ফাটিয়ে দিয়েছিলেন শহিদ।
karina-2-300x171

ছবিতে ‘গীত’ চরিত্রেও প্রথমে আয়েশা টাকিয়াকে ভেবেছিলেন ইমতিয়াজ। আয়শাও সরে পড়েন কোনও এক অদৃশ্য কারণে। পরে কারিনার ‘হাই-স্পিরিট’ক্যারেক্টরের কথা মনে পড়ে পরিচালকের। ওই সময়কার প্রেমিক শহিদের সঙ্গে জুটি বেঁধে ফাটিয়ে দিয়েছিলেন কারিনাও।‘জব উই মেট’ ছবিটি ছিল কারিনার জীবনের একটা মাইলস্টোন।

ছবিতে ‘অংশুমান’ চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তরুণ রাজ অরোরা। এই ছবির শুটিংয়ের সময় শহিদ-কারিনা ব্যক্তিগত জীবনেও ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে ছিলেন। তরুণ জানিয়েছেন, যতই শহিদ-কারিনা প্রেম করুক না কেন, ছবির শুটিংয়ে অসম্ভব পেশাদারী মনোভাব ছিল দুজনেরই।

আসলেই কি গোপনে শ্রীদেবীকে বিয়ে করেছিলেন মিঠুন?

বলিউড তারাদের বিয়ে মানেই জমজমাট ব্যাপার। ফিল্মি দুনিয়ার সঙ্গে জড়িত লোকজনের ভিড়।

খানাপিনা। নাচাগানা। নেতা-মন্ত্রী থেকে শুরু করে দেশের ভিআইপিরা অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত থাকেন সেসব বিয়েতে। খবরের শিরোনাম দখল করে থাকে বিবাহ অনুষ্ঠান। এতো গেল মুদ্রার একটি পিঠ। অপর পিঠও রয়েছে। এমন অনেক তারকা রয়েছেন যাঁরা বিয়ে করেছেন গোপনে। কাকপক্ষীতেও টের পায়নি সেই খবর। পরে জানাজানি হয়েছে।

মিঠুন ও শ্রীদেবীর প্রেম বলিউডের বহুল আলোচিত বিশয়। শ্রীদেবীকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন বিবাহিত মিঠুন। শ্রীদেবী নাকি শর্ত দেন যোগিতা বালিকে ডিভোর্স দিলে তবেই তিনি মিঠুনের সঙ্গে সংসার করবেন। তবে, মিঠুনকে তখন নাকি ডিভোর্স দিতে রাজি হননি যোগিতা। তিনি নাকি আত্মহত্যার হুমকিও দেন। সেকারণে, শ্রীদেবীর কাছ থেকে সরে আসেন মিঠুন। অনেকে আবার বলেন, শ্রীদেবীর সঙ্গে গোপনেই বিয়ে সেরে ফেলেছিলেন মিঠুন।

তবে এর বাইরে আর কোনো নিশ্চিত কোন তথ্য পায়নি বলিউড।